Post has attachment
সখী, ভালবাসা কারে কয়?
- সনেট রেক্সা

উত্তপ্ত সূর্য; ব্যস্ত নগরী; ঘামে ভেজা বগলে ব্যাক্টেরিয়াদের উল্লাস,
কলার ছেঁড়া পাঞ্জাবী আর ক্ষয়ে যাওয়া চটি টাও ফেলছে যেন দীর্ঘশ্বাস।
৪৪০ভোল্টের তারে বসে থাকা কাকের সাথে পাল্লা দিয়ে ম্যাটে অপেক্ষা,
ঠোটের সিগারেটের ধোঁয়া নাক দিয়ে বের হয়ে বারমুখ্যার ইশারা করছে উপেক্ষা।
শেষ সিকি দিয়ে কেনা হাতে ছেড়া পাপড়ির লাল রংঙা ফুল,
লালা মিশ্রিত চুমুর সাথে ক্ষানিক দুষ্টুমির হাসি; অতঃপর কিছু ভুল।
কাল রমণীর কামনা মিশ্রিত অভিমানী আকুতি,
হার মানা যুবকের কম্পন ভরা বুকে নতজানু মিনতি।
বর্তমান কে পুঁজি করে; ছুটছে কালের নৌকায় ভর করে; তবু সাহসী বুকে কিছু ভয়,
অতীত গুলো ছুড়ে ফেলে; মনের ডানা বাতাসে মেলে; যেন হবেই আজ জয়।
স্বামী সংসার দূরে ঠেলে; সিতির সিঁদুর মুছে ফেলে; এক বুক ছুটে আসা,
জাত কুল ভুলে; ঘোমটা টাকে তুলে; যুবকের হাত ধরে নতুন আশা।
হায় প্রেম, তুমি যেন এক হার জিতের খেলা পাশা,
এরই নাম কি তবে ভালবাসা?
Photo

শেষ পর্যন্ত গল্পটা লিখেই ফেললাম
----সনেট রেক্সা

শেষ পর্যন্ত তোমায় নিয়ে গল্পটা লিখেই ফেললাম,
পান্ডুলিপিটাও মোটামুটি তৈরী হয়ে গেছে, এখন একজন
প্রকাশক দেখে ভালোয় ভালোয় প্রকাশ করতে পারলেই হলো,
দেখো; এবারের বই মেলায় পুরোনো সব রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলবে,
চারদিকে কি রকম রবরব হট্টোগোল সৃষ্টি হয়ে যাবে,
সবাই তোমাকে বাহবা দেয়ার জন্যে হন্যে হয়ে খুঁজবে,
তোমার চরিত্র পড়ে রমনীরা তোমার দীক্ষ্যা নিতে ঘুরবে।
এই বই পড়ে জানতে পারবে, একটি নাবালিকা কিভাবে
হঠাৎ পরিপূর্ণ সাবালিকা হয়ে উঠে, একজন নারী কিভাবে
একটি রমনী রূপ ধারন করতে পারে। একজন রমনীর কাছে
ভালবাসার কত রূপ থাকতে পারে, একটি হৃদয়
কতভাবে বিলিয়ে দেয়া যায় যাকে তাকে।
এই বই থেকে আরও জানা যাবে, একটা সফেদ চিত্তের খোঁজে
কতগুলো মরদ বেডা ভৃত্য হয়ে ঘুরে দ্বারে দ্বারে।
তুমি শুধু সময় করে একবার এসে একটা অটোগ্রাফ দিয়ে যেও,
আমি ওই কপিটি লাইব্রেরিতে যত্ন করে তুলে রাখব।।

★★★★★

কলঙ্কিত ১৪২২ এবং আমার পরিচয়
- সনেটrexa

ঝলমলে আকাশে রক্তিম সূর্যটা নির্বাক চেয়ে আছে
মাথা উচু করে থাকা বৃক্ষগুলির চোখ লজ্জায় বন্ধ,
লালপাড় সাদাশাড়ি পরে ললনারা ছুটোছুটি করছে
আর আমার দৃষ্টি তাদের নিতম্বকে গ্রাস করে যাচ্ছে।

এমন কতিথ সভ্য সমাজের বর্বর এক পুরুষ আমি
পুরুষ! নাকি নারী খাদক বলবো আমাকে?
আমার মা বোন স্ত্রী বা কোন প্রেমীকা নেই; বর্বর
নারী খাদকের কোন মা বোন স্ত্রী বা প্রেমীকা থাকেনা।

আমি অন্যায় দেখলে চোখ বন্ধ করে থাকি, কারন
আমি কাপুরুষ, প্রতিবাদ করার সাহস আমার নেই।
আমি যৌনতাকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছি,
যাতে লোকারন্যে নারী খেলায় মেতে থাকতে পারি।

আমি রাবন হয়ে এখনও সীতাদের
অগ্নি পরীক্ষা দেখে অট্ট হাসি
দ্রৌপদীর বস্ত্রহরন এখনও আমায় সুখ দেয়,
তাইতো টেনে হিছড়ে ছিড়ে দ্রৌপদীদের বক্ষ দেখতে চাই।

পেশি শক্তি দেখানোর জন্য আমি নারীকে বেছে নিয়েছি,
আমি নারীদের যোনিতে বুটের লাথি মারতে দ্বিধা করিনা,
আমি ভুলে গেছি; এই পথ দিয়ে একদিন সমস্ত শরিরে
সাদা স্রাব মেখে চিৎকার করতে করতে এসেছিলাম।

আমি আদিমপুরুষ হয়ে লোকালয়ে পুরুষাঙ্গের প্রদর্শন করি,
প্রেম বিনিময় করে রমনীদের কাছে পেতে চাইনা; কারন
রুদ্রের ধর্ষিতার কাতর চিৎকার আমাকে আজও আনন্দ দেয়।

আজি নববর্ষের প্রথম প্রহরে পুরুষ হিসেবে এই আমার পরিচয়।
Wait while more posts are being loaded