Post has attachment
মঙ্গলবার প্রস্তুতি ম্যাচে মুখোমুখি বাংলাদেশ-ভারত

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শুরুর আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সুযোগ পায় বাংলাদেশ। নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার প্রথম ম্যাচটি মাঠে গড়িয়েছিল শনিবার। ব্যাটিং প্রাকটিসটা ভালো হয়েছে! পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩৪১ রান করেছিলেন তামিম-ইমরুল-মুশফিকরা। তবে আত্মবিশ্বাসের বলিয়ান হওয়ার ঝালাইটা কি হয়েছে? বোধ হয়, নাহ। এত বড় স্কোর নিয়েও বোলারদের অপরাগতার কারণে পাকিস্তানের কাছে টাইগাররা হেরে গেছেন ২ উইকেটে।

একটা সুযোগ হতাছাড়া হয়েছে। তাতে কী? সুযোগ তো ফুরিয়ে যায়নি। বাকি আছে আরেকটা। ভারতের বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচ রয়েছে বাংলাদেশের। আগামীকাল মঙ্গলবার বিরাট কোহলির দলের বিপক্ষে লড়াইয়ে নামবে মাশরাফি বাহিনী। বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় লন্ডনের দ্য ওভালে গড়াবে ‘গা গরমের’ ম্যাচটি। সরাসরি সম্প্রচার করবে স্টার স্পোর্টস।

প্রস্তুতি পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দুই ধরনের অভিজ্ঞতা হয়েছে বাংলাদেশ-ভারতের। ৩৪১ রানের বড় পুঁজি নিয়েও পাকিস্তানের সঙ্গে জিততে পারেনি বাংলাদেশ। শেষ মুহূর্তে ফাহিম আশরাফের ঝড়ে বিধ্বস্ত হয়েছেন টাইগাররা। ৩০ বলে চারটি করে চার ও ছক্কায় ৬৪ রানের হার না মানা ইনিংস খেলে বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্ন ধূলিসাৎ করে দেন তরুণ এই অলরাউন্ডার।

অপরদিকে শেষ পর্যন্ত কী হতো? তা পরের কথা। বৃষ্টি আইনে জয় পেয়েছে ভারত। বিরাট কোহলির দলের জয়টা ৪৫ রানের। দ্য ওভালে ভারতীয় বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। ৩৮.৪ ওভার খেলে কেন উইলিয়ামসনের দল অলআউট হয় ১৮৯ রানে। জবাবে ২৬ ওভার খেলে ৩ উইকেটে ১২৯ রান তোলে ভারত। এরপরই শুরু হয় বৃষ্টি। ম্যাচটির বাকি খেলা আর মাঠে গড়াতেই দিল না বেরসিক বৃষ্টি। যে কারণে ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে নির্ধারিত হয় ম্যাচের ফল।

ভারতের জন্য স্বস্তির বিষয়, বিরাট কোহলি ছন্দে ফিরেছেন। আইপিএলে খুব একটা ভালো সময় কাটেনি তার। শেষ ম্যাচে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিপক্ষে ৫৮ রান করেছিলেন তিনি। এবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে বৃষ্টির আগে অপরাজিত ৫২ রানের ইনিংস খেলেছেন ভারত অধিনায়ক। আইপিএলে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ক্রিকেটাররা তো আছেনই।

ঘুরে দাঁড়ানোর ম্যাচে ভারতের সামনে কঠিন পরীক্ষাই দিতে হবে বাংলাদেশকে। নিজেদের সেরাটাই উজাড় করে দিতে চাইবেন মাশরাফিরা। পাকিস্তানের চেয়ে ভারতের ব্যাটিং লাইন-আপ অনেক ভালো! তাই বাংলাদেশের বোলাররা নিয়ন্ত্রিত বোলিং করতে না পারলে জয় পাওয়া হবে বড্ড কঠিন। ভুল করলে মাশুল দিতে হবে বাংলাদেশকে, এটা বলার অপেক্ষা রাখে না। তিন বিভাগেই নিজেদের মেলে ধরতে পারবে কি বাংলাদেশ? সময়ই সব বলে দেবে। ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশ দল হোক আত্মবিশ্বাসে বলিয়ান, এমন প্রত্যাশাই বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের।

প্রসঙ্গত, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির উদ্বোধনী ম্যাচ মাঠে গড়াবে ১ জুন। ওভালের ওই ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। ৫ জুন একই মাঠে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে মাশরাফির দল। গ্রুপপর্বে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। ৯ জুন কার্ডিফে অনুষ্ঠিত হবে ওই ম্যাচ।
Photo

Post has attachment
নাসিরের সেঞ্চুরিতে গাজীর হাসি

নাসির হোসেন যখন ব্যাটিংয়ে নামলেন, ২৫ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। নাসির সেই চাপটা সামলেছেন। দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করে প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে দারুণ শুরু এনে দিয়েছেন গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সকে। বিকেএসপিতে মোহামেডানের বিপক্ষে গাজী জিতেছে ৭ উইকেটে।

প্রথম ১১ বলে করেছেন ১ রান। নাসিরের প্রথম বাউন্ডারি পেতে লেগেছে ১৪ বল। ফিফটি ৬৯ বলে। শুভাশিস রায়কে দারুণ এক লেট ছুঁয়েছেন তিন অঙ্ক (১০৪ বলে)। লিগে নিজের প্রথম সেঞ্চুরির ইনিংসে নাসির বেশি চড়াও হয়েছেন তাইজুল ইসলামের ওপর। ৯ চারের সঙ্গে যে ৫টি ছক্কা মেরেছেন তাঁর চারটিই বাঁহাতি এই স্পিনারের বলে। ৩২তম ওভারে পরপর তিনবার বাউন্ডারির ওপারে আছড়ে ফেললেন তাইজুলকে। প্রথম ছক্কাটা বোলারের মাথার ওপর দিয়ে, দ্বিতীয়টি লং অন দিয়ে আর শেষটি এল লং অফ দিয়ে উড়িয়ে মেরে। পরের ওভারে কামরুল ইসলামের শর্ট বলে চোখে প্রশান্তি এনে দেওয়া এক পুলে যেভাবে বাউন্ডারি মারলেন, তাঁর বিরুদ্ধে বেশি জোরের বলে দুর্বলতার অভিযোগ অমূলকই মনে হবে। ১০৬ বলে অপরাজিত ১০৬ রান করে দলকে জিতিয়েই ফিরেছেন জাতীয় দলে ব্রাত্য হয়ে পড়া এই ক্রিকেটার।
ম্যাচের নায়ক নাসির হলেও গুরুত্বপূর্ণ পার্শ্বচরিত্র পারভেজ রসুল। অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেট জুটিতে নাসির-পারভেজের ১৩১ বলে ১৪৪ রানই সহজ করেছে গাজীর জয়। ৬ রানে পাওয়া সুযোগ ভালোই কাজে লাগিয়েছেন পারভেজ। তাইজুল ইসলামের বলে শর্ট মিড উইকেটে ভারতীয় অলরাউন্ডারের লোপ্পা ক্যাচটা লুফে নিতে পারেননি নাজমুল মিলন। কুড়িয়ে পাওয়া সুযোগে পারভেজ ৫১ বলে অপরাজিত ৫৪ রানে।
বিকেএসপির অন্য মাঠে আরেক ভারতীয় ব্যাটসম্যান উন্মুক্ত চাঁদের অপরাজিত ৬১ রানের সৌজন্য কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের বিপক্ষে প্রাইম ব্যাংক জিতছে ৫ উইকেটে। পাঁচ বছর পর কলাবাগানের হয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ফেরা আশরাফুল এই ম্যাচে করেছেন ৬। লিগে আশরাফুলই কলাবাগানের অধিনায়ক।
ফতুল্লা স্টেডিয়ামের উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব (৪৯.২ ওভারে ২১০/৮) শেষ ওভারে ২ উইেকেট হারিয়েছে ভিক্টোরিয়াকে (৪৮.২ ওভারে ২০৯)। শেখ জামালের নুরুল হাসান ৯৪ বলে করেছেন ৮০ রান।
Photo

Post has attachment
অলিম্পিকে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার খেলা কবে কখন

অলিম্পিকের পর্দা উঠবে কাল। তবে নেইমারদের খেলা দেখতে ততক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে না। নেইমাররা আজই মাঠে নেমে যাবেন। আজ রাত ১টায় ব্রাসিলিয়ার মানে গারিঞ্চা স্টেডিয়ামে ব্রাজিল তাদের প্রথম ম্যাচ খেলবে। গ্রুপ ‘এ’ তে আজ তাদের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা। নেইমারদের খেলার পরপরই রাত ৩টায় হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনার খেলা। গ্রুপ ‘ডি’তে আর্জেন্টিনাকে অবশ্য কঠিন প্রতিপক্ষের মুখোমুখি হতে হবে। সদ্য ইউরো জেতা পর্তুগালের মুখোমুখি দুবারের অলিম্পিকের সোনাজয়ীরা। আর্জেন্টিনার খেলাটি হবে রিও ডি জেনিরোতে, অলিম্পিক স্টেডিয়ামেই।

===কবে কখন খেলা===
ব্রাজিল- দক্ষিণ আফ্রিকা - ৪ আগস্ট, রাত ১টা
ব্রাজিল-ইরাক - ৮ আগস্ট, সকাল ৭টা
ব্রাজিল- ডেনমার্ক - ১১ আগস্ট, সকাল ৭টা

আর্জেন্টিনা- পর্তুগাল - ৪ আগস্ট, রাত ৩টা
আর্জেন্টিনা- আলজেরিয়া - ৭ আগস্ট, রাত ৩টা
আর্জেন্টিনা- হন্ডুরাস - ১০ আগস্ট, রাত ১০টা
Photo

Post has attachment
রুবেল-মুস্তাফিজরাই এখন ‘রোল মডেল’


একটা সময় বাংলাদেশের বোলিংয়ের মূল শক্তি ছিল স্পিন। ছবিটা বদলেছে গত কয়েক বছরে। পেস-আক্রমণ দিয়ে সাফল্য পাচ্ছে বাংলাদেশ। দলে আছে রুবেল হোসেন-মুস্তাফিজুর রহমান-তাসকিন আহমেদদের মতো কিছু ফাস্ট বোলার। যাঁরা পথ দেখাবেন সামনে থেকে, হবেন তরুণদের আদর্শ। সাত দিনের জন্য বিসিবির হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের পেসারদের পরামর্শক হিসেবে কাজ করতে আসা পাকিস্তানের সাবেক পেসার আকিব জাভেদ মনে করেন এমনটাই।
পাকিস্তানে ইমরান খান, ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনিস, কিংবা আকিব জাভেদ নিজেও আদর্শ হয়ে আছেন বহু তরুণ পেসারের কাছে। বাংলাদেশ অবশ্য এমন ফাস্ট বোলার খুব বেশি পায়নি। আকিব মনে করেন, ‘সামনে আদর্শ না থাকায় এমনটা হয়েছে।’ সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাবেক এই কোচ বিষয়টির একটি ব্যাখ্যাও দিয়েছেন, ‘আপনি যদি কোনো ফাস্ট বোলারের ছবি কিংবা ভিডিও দেখান, যদি সে ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করতে না পারে তবে সে তরুণ পেসারদের অনুপ্রাণিত করবে না। তবে সাম্প্রতিক সময়ে কিন্তু দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশের এমন পেসার আছে। আপনাদের তিন বোলার আছে যারা তরুণদের দেখাতে পেরেছে তারা জোরে বল করতে পারে। এটা শুরু মাত্র। আমাদেরও এমন ছিল। কিন্তু যখন আদর্শ হিসেবে ইমরান এলেন, আমাদের আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে গতির ঝড় তুলে বাংলাদেশের পেস আক্রমণকে সমৃদ্ধ করেছেন রুবেল-তাসকিনরা। আর গতির সঙ্গে কাটারের কাঁটা যোগ করে ব্যাটসম্যানদের কাছে দুর্বোধ্য এক বোলার হয়ে উঠেছেন মুস্তাফিজ। বাংলাদেশের এই পেসত্রয়ীকে নিয়ে আকিবের ভবিষ্যদ্বাণী, ‘রুবেল, তাসকিন ও মুস্তাফিজ এসে পড়ায় আগামী কয়েক বছরে আপনারা আরও ফাস্ট বোলার পাবেন। আপনাদের নিজেদের আদর্শ আছে এখন।’
আকিব জাভেদের হয়তো মাশরাফি বিন মুর্তজার নামটা মনে পড়েনি। অথচ এই সময়ে বাংলাদেশের প্রায় সব তরুণ পেসারের স্বপ্নদ্রষ্টা মাশরাফি। অবশ্য বারবার তিনি চোটে পড়েছেন, তাঁর দুই হাঁটুতে অস্ত্রোপচার হয়েছে সাতবার। এতে শুরুর গতিটা ধরে রাখা সম্ভব হয়নি তাঁর পক্ষে। কিন্তু মাশরাফি দেখিয়ে দিয়েছেন পথটা। সেই পথ ধরেই এসেছেন রুবেল-মুস্তাফিজরা। ভবিষ্যতে নিশ্চয়ই রুবেলদের দেখে আসবে আরও প্রতিভাবান পেসার।
Photo

Post has attachment
দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড অচেনা তরুণের


কৈশোরের লালিত্য মুখ থেকে এখনো যায়নি। অ্যানিউরিন ডোনাল্ডের বয়স তো মাত্র ১৯। কিন্তু গ্ল্যামারগনের এই টিনএজারই কাল নির্দয়ভাবে বোলারদের শাসন করেছেন। সেটা করতে গিয়ে একটা রেকর্ডও ছুঁয়ে ফেলেছেন। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ডটা যে এখন যৌথভাবে ডোনাল্ডের, কাল কাউন্টিতে ডার্বিশায়ারের বিপক্ষে ২০০ ছুঁয়েছেন মাত্র ১২৩ বলে! ১৯৮৫ সালে ভারতের রবি শাস্ত্রীর গড়া রেকর্ডেও এবার ভাগ বসালেন ডোনাল্ড। শাস্ত্রীর সেই ইনিংসটা আরও বিশেষভাবে স্মরণীয় আছে এক ওভারে ছয় ছক্কার কারণে।
কাল ডোনাল্ডও ছক্কার বৃষ্টি বইয়ে দিয়েছেন। সব মিলিয়ে ছক্কাই মেরেছেন ১৫টি। ক্রিজে যখন নেমেছিলেন, গ্ল্যামারগন ৯৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে একটু কোণঠাসাই। সেখান থেকে ডোনাল্ড শুরু করলেন পাল্টা আক্রমণ। শুরুর দিকে একটু সময় নিয়েছিলেন, সেঞ্চুরি পূরণ করতে ৮০ বল খেলতে হয়েছিল। তোপটা শুরু করলেন তারপর, পরের ৪৩ বলে করলেন আরও ১০০ রান।
মাইলফলকগুলোও ছুঁয়েছেন রাজসিক ঢঙে, ১০০, ১৫০, ২০০ পূর্ণ করেছেন ছয় মেরেই। শেষ পর্যন্ত ১৩৬ বলে ২৩৪ রান করেই আউট হয়েছেন। ডোনাল্ড অবশ্য ভাগ্যেরও ছোঁয়া পেয়েছেন, ইনিংসের শুরুতে তাঁর দুইটি ক্যাচ ধরতে পারেনি ডার্বিশায়ারের ফিল্ডাররা। ৯৬ ওভারে ৪৮১ রান নিয়েই কাল দিন শেষ করেছে গ্ল্যামারগন।
ডোনাল্ডের ১৫ ছক্কার সর্বশেষটি গিয়ে পড়েছে মাঠের পাশ যাওয়া এক গাড়িতে। দ্রুততম সেঞ্চুরির ৩১ বছর পুরোনো রেকর্ডটা শেষ পর্যন্ত ভাঙা হয়নি, তবে গাড়ির কাচ ভেঙেছেন! শুধু দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান নন, গ্ল্যামারগনের ইতিহাসে এর চেয়ে কম বয়সে ২০০ রানও আর কেউ করতে পারেনি। আগের রেকর্ডটা ছিল জন হপকিন্সের, ডোনাল্ডের চেয়ে তখন তাঁর বয়স ছিল পাঁচ বছর বেশি।
http://bit.ly/29OgY3i
Photo

Post has attachment
নিরাপদ যোগাযোগ ব্যবস্থায় গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল দেশ ও সমাজে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে নিরাপদ যোগাযোগ ব্যবস্থাকে কৌশলগত সুযোগ হিসেবে কাজে লাগানোর উপর গুরুত্বারোপ করেছেন। তিনি বলেন, যোগাযোগ এখন আর কোনো একক দেশের বিষয় নয়। বর্তমানে যোগাযোগ ব্যবস্থা সবার জন্য কৌশলগত সম্ভাবনা ও সুযোগে পরিণত হয়েছে।

শুক্রবার ১১তম আসেম-এর প্লেনারি-২ অধিবেশনে ভাষণদানকালে তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, টেকসই, অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি অর্জন ও স্থিতিশীল উন্নয়নের লক্ষ্যে যোগাযোগ কাঠামোর রূপরেখা কি হবে তা ঠিক করা প্রয়োজন। আজ আসেমের দেশগুলো নতুন প্রবৃদ্ধির কেন্দ্র ও সংযোগস্থলে পরিণত হচ্ছে। দীর্ঘদিনের পরিচিত বাণিজ্য ও শিল্প অংশীদাররা এখন নতুনদের জন্য পথ করে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের অর্থনীতিতে উৎপাদন ও সেবা খাতে ধারাবাহিক ও দায়িত্বশীল বাণিজ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে উঠছে এবং পারস্পরিক আঞ্চলিক কর্মকাণ্ডে আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক পণ্য বিপণন ব্যবস্থাপনাও (সাপ্লাইচেইন) সম্প্রসারিত হচ্ছে। যথাযথ মান এবং সংহতি, বন্ধুত্ব, পারস্পরিক আস্থা ও সমতার মতো নীতির ভিত্তিতেই সব উন্নয়ন উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।

এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে বহুমুখী যোগাযোগের ক্ষেত্রে অগ্রগতির কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপাল (বিবিআইএন) এবং বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মায়ানমারের মধ্যে অর্থনৈতিক করিডোর (বিসিআইএম-ইসি) অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এসব অঞ্চলে যোগাযোগ সংযোগের ফলে বিপুল সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং জনগণের জীবন ও জীবিকার উন্নয়ন ঘটবে।

ই-সেবায় বাংলাদেশের অগ্রগতি তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, অভিন্ন জাতীয় ই-পোর্টালের সঙ্গে যুক্ত দেশব্যাপী ৫ হাজার ৩শ’ ডিজিটাল সেন্টার এবং প্রায় ৪৩ হাজার সরকারি অফিস ই-পোর্টালের অধীনে ৪ দশমিক ৫ মিলিয়ন লোক ৭০টিরও বেশি ই-সেবা গ্রহণ করছে।

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, বিশেষ করে সংযোগ বিষয়ক আসেম ওয়ার্কিং গ্রুপ আরো বৃহত্তর ফলাফল নিয়ে আসবে।

মঙ্গোলিয়ায় তাকে এবং বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলকে আন্তরিক আতিথেয়তা জানানোর প্রশংসা করে তিনি বলেন, দেশটির ঐতিহাসিক এই নগরী পূর্ব ও পশ্চিম, উত্তর ও দক্ষিণের মধ্যে আন্তঃসংযোগের এক নীরব স্বাক্ষী।

উল্লেখ্য, দু’দিনব্যাপী এশিয়া-ইউরোপ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে গতকাল (বৃহস্পতিবার) মঙ্গোলিয়ায় পৌঁছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে সাঙ্গরি-লা হোটেলে সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী সম্মেলনস্থলে পৌঁছলে মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট তাজখিয়াজিন এ্যালবেগদোরজ তাকে স্বাগত জানান।
Photo

Post has attachment
জেনে নিন পরবর্তী এল ক্লাসিকোর তারিখ

রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই শিরোপা ধরে রাখার মিশন শুরু করবে বার্সেলোনা। অবশ্য রিয়াল মাদ্রিদ নয়; সেই ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ রিয়াল বেতিস। আজ লা লিগার সূচি ঘোষণা করেছে স্প্যানিশ ফুটবল সংস্থা। তাতে চূড়ান্ত তারিখ এখনো নির্ধারিত না হলেও কোন সপ্তাহে কোন ম্যাচগুলো হবে তা জানা গেছে। বিশ্বজুড়ে ফুটবল ভক্তরা যে লড়াইটির জন্য অধীর অপেক্ষা করেন, তারও সূচি জানা গেল। লিগে এল ক্লাসিকোর লড়াই দুটি হবে এ বছর ডিসেম্বর ও আগামী বছর এপ্রিলে।

৮ থেকে ১৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় ক্লাব বিশ্বকাপ খেলার জন্য দেশ ছাড়বে রিয়াল। এর আগেই বার্সার মুখোমুখি হবে তাঁরা। লিগের প্রথম এল ক্লাসিকোটি হবে ৩ নয়তো ৪ ডিসেম্বর। লিগের লড়াই যখন জমে উঠবে, শেষ অঙ্কের নাটক শুরু হবে, তখনই দ্বিতীয় এল ক্লাসিকো। সেটি হওয়ার কথা ২২ অথবা ২৩ এপ্রিল।
এমনিতে বার্সা-রিয়াল দুদলই অন্য দুই রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের লিগ শুরু করবে। ২০ অথবা ২১ আগস্ট হবে এই দুই দলের লিগে প্রথম ম্যাচ। বার্সার প্রতিপক্ষ তো আগেই জেনেছেন, রিয়ালের প্রতিপক্ষ রিয়াল সোসিয়েদাদ। বার্সা ম্যাচটি খেলবে নিজেদের মাঠে। অ্যাওয়ে ​ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে রিয়ালের।
এটাই হবে কোচ হিসেবে রিয়ালে জিদানের প্রথম পূর্ণ মৌসুম। গতবার ছয় মাসেরও কম সময়ের দায়িত্বে লিগ জেতাতে না পারলেও রিয়ালকে চ্যাম্পিয়নস লিগ ট্রফি এনে দিয়েছিলেন। ফাইনালে অ্যাটলেটিকো মা​দ্রিদকে হারিয়ে। বার্সা-রিয়ালের দুই ঘোড়ার রেসকে শক্ত চ্যালেঞ্জ জানানো অ্যাটলেটিকো এবারও প্রস্তুত দাঁত চেপে লড়াই করতে। এল ক্লাসিকোর মতো আগ্রহ না থাকলেও মাদ্রিদ ডার্বিও এখন বেশ জমে ওঠে। ২০ নভেম্বর অ্যাটলেটিকোর মাঠে খেলে এসে ৯ এপ্রিল নিজেদের মাঠে অ্যাটলেটিকোর মুখোমুখি হবে রিয়াল।
Photo
Wait while more posts are being loaded