Profile

Cover photo
GIAS UDDIN Ahmed
Worked at Dhaka, Bangladesh
Lived in Azimpur, Dhaka, Bangladesh
187 followers|11,799 views
AboutPostsPhotosVideos

Stream

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
this india
YouTube



January 29, 2013 3:25 PM BDST



Home
National
Business
Politics
International
Sports
Education
Technology
Aviatour
Law
Entertainment
Photo Gallery
All News








Home » National




28 Jan 2013 06:26:20 PM Monday BdST


BSF abducts 4 Bangladeshis
Staff Correspondent
banglanews24.com


SYLHET: Indian Border Security Force (BSF) personnel abducted four Bangladeshi nationals from Gowainghat frontier of the district on Monday noon.

The identity of the victims could not be known immediately.

Sylhet sector commanding officer of Border Guard Bangladesh (BGB) Lt Col Khairuzzaman said, “We are discussing with BSF in this regard and we hope to get a solution by evening.”

Captain of BGB-5 Lt Col Shafiul Azam told banglanews that BSF adducted the four persons when they mistakenly crossed the zero line of the frontier.

BDST: 1815 HRS, JAN 28, 2013

Edited by: Abul Kalam Azad, Newsroom Editor/ M. Mahbub Alam, Asst Output Editor, SM Salahuddin, Output Editor
eic@banglanews24.com








All rights reserved. Sale, redistribution or reproduction of information/photos/illustrations/video/audio contents on this website in any form without prior permission from banglanews24.com are strictly prohibited and liable to legal action.








0
in
Share

digg







Latest 24 news of National

BGB nabs 9 in Benapole
BSF firing kills Indian
Plea filed seeking arrest of owners
Sayedee verdict any day
Cocktail blast injures rickshaw puller
Suranjit’s contempt rule disposed of
Faridpur bus strike called off
Hartal in Laxmipur on Wednesday
BSF nabs BD man in Thakurgaon
47 Shibir men sued in city
2 buses burned down in city
2 Islami organizations calls hartal for Feb 13
ACC to send MLAR to US
Pranab Mukherjee due in Dhaka March 4
BCL leader chopped in Rangpur
BSF to return abducted BD man
UP chairman held in Comilla
AL leader killed in Cox’s Bazar
BSF kills BD national
Shibir beats police men in Satkhira
17 fishermen shot
Sushil lauds Bashundhara City
Cabinet condoles Nurul Islam`s death
Mother-daughter killed

All news of National »










Home National Business Politics International Sports Education Technology Health Entertainment Lifestyle Banglanews Exclusive Open Forum About Us Contact Us
banglanews24.com Editor-in-Chief: Alamgir Hossain
Media House, Plot # 371/A (2nd Floor), Block # D, Bashundhara Road, Bashundhara R/A, Baridhara, Dhaka-1229, Bangladesh
NewsRoom Cell: +88-01729076996, 01729076999 Phone: +880-2-8402181, 8402182 IP Phone: +880-9612120000, Fax: +880 2 840 2346
Email: news.bn24@gmail.com, news@banglanews24.com(Central Desk), corr.bn24@gmail.com(Country Desk), editor@banglanews24.com(Editor-in-Chief)
An EWMGL Concern. Copyright © banglanews24.com 2013. All Right ® reserved
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
this is india
Business Sports Tech Entertainment Life Photo Video Blogs Classified Priyo.com
Home
BSF Brutality

HRW for probe into human rights violations by BSF
Tue, 12/06/2012 - 1:01pm BdST

Indian authorities should investigate allegations of HR violations by its BSF along the Bangladesh border and prosecute those found responsible, New York based HRW said on Tuesday.

Indian cattle trader shot dead by BSF on Putkhali border
Sat, 09/06/2012 - 4:22pm BdST

An Indian cattle trader was shot dead by Indian Border Security Force (BSF) on Putkhali border here early Saturday.

BSF kills 1 Bangladeshi
Fri, 25/05/2012 - 12:24am BdST

The Indian Border Security Force (BSF) shot a Bangladeshi cattle trader dead at Phulbari border of Dinajpur early yesterday, said Border Guard Bangladesh (BGB) sources.

Bangladeshi cattle trader killed by BSF
Fri, 18/05/2012 - 3:15pm BdST

A Bangladeshi cattle trader was killed early Friday after BSF hurled cocktail and fired a shot at him at Daudpur border in Birampur upazila of Dinajpur.

Youth shot dead by BSF
Thu, 17/05/2012 - 2:01am BdST

Indian Border Security Force (BSF) shot dead a Bangladeshi youth early yesterday at Azmatpur border in Shibganj upazila of Chapainawabganj.

72 killed by BSF along Dinajpur border since ‘07
Mon, 07/05/2012 - 2:23am BdST

Odhikar at a press conference on Sunday, urged the government to take steps to stop BSF atrocities on civilians along the border between India and Bangladesh.

BSF ears wide shut
Sun, 06/05/2012 - 1:51am BdST

Indian Border Security Force has killed two Bangladeshis and injured 10 others on average per month this year despite repeated pledges by their home minister not to open fire along the border.

Bangladeshi cattle trader beaten by BSF
Wed, 25/04/2012 - 1:05pm BdST

A Bangladeshi cattle trader was beaten and injured allegedly by Indian Border Security Force (BSF) at its Angrail camp at Putkhali Border here on Tuesday night.

BSF kills Bangladeshi along Satkhira border
Thu, 12/04/2012 - 5:18pm BdST

Members of Border Security Force (BSF) of India hacked to death a Bangladeshi cowboy at Koijury in India, opposite to Boikari village in Satkhira sadar upazila, early Thursday.
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
this is india
to Old Site
Archive
Podcast
Witness
Story Idea
Rss

The Daily Star
Your Right To Know
Friday, January 25, 2013

Home
Business
Sports
Arts & Entertainment
Travel
IT & Telecom
Science
Advertisement


Sections 
Magazines 
Today's paper
Front Page
Editorial
Metropolitan
National
International
Op-Ed
Letters
Literature
Podcast
Life Style
Chittagong
Witness
Latest News
CU te_
National
Friday, January 25, 2013National
BSF injures two in Kurigram, picks up another in Jhenidah
BDR, BSF hold meeting to resolve 'diputes'
Our Correspondent, Kurigram

Indian Border Security Force (BSF) shot and injured two Bangladeshi cattle traders in Phulbari border area in the district on Wednesday.

The injured are Enamul Haque, 28, son of Tafsir Ali and Mominul Islam, 25, son of Jabed Ali of Krisnananda village in the upazila.

According to Border Guard Bangladesh (BGB) and local sources, a group of cattle traders with about 40 cows were coming to Bangladesh from India through Krisnananda border at around 10:30pm.

BSF men at Narayanganj camp in Cooch Behar district in India opened fire on them, leaving Enamul Haque and Mominul Islam seriously injured.

In Jhenidah, BSF picked up a Bangladeshi along Srinathpur border in Moheshpur upazila yesterday.

The man was identified as Zia Malik, 35, son of Mosharraf Malik of Shyamkur Purba Para of the upazila, reports UNB.

Solaiman Hossain, Srinathpur BGB camp commander, said BSF members caught Zia and took him to their camp when he was going to India through the border illegally at about 6am.

The BSF authorities did not return the kidnapped Bangladeshi till 5:00pm yesterday despite a flag meeting between BGB and BSF held at Laraighat at about 12:30pm on the day.

Meanwhile, BGB and BSF at a sector commander level meeting in Chuadanga yesterday agreed to resolve 'major disputes' through discussion and vowed not to open fire on innocent people.

Lt Col Farid Uddin, sector commander of Mirpur, Kushtia, led the 8-member Bangladesh team while Col RC Gore, Deputy Inspector General of Krishnangar BSF, led the eight-member Indian team at the day-long meeting held at Darshana check-post, reports our Kushtia correspondent.

At the meeting, BGB raised several issues, including killing of Bangladeshis especially cattle traders by BSF, smuggling of small firearms, explosives and contraband items from India and sought help from its Indian counterpart to stop those.

The other issues discussed in the meeting included human trafficking and push-in incidents.

In reply, the Indian officials agreed in principle to stop firing at Bangladeshis and take effective steps to stop smuggling of firearms, explosives and contraband goods, sources said.

At the meeting, they also alleged illegal entry of Bangladeshis into India and urged the BGB to check it.
Share on
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
this is india
  BSF arrested Sahinul while taking money from Bangladeshi at Bagli

Posted about 4 hours ago | 0 comment
Shillong, January 24:  On 23rd Jan’ 2013, on specific input, BSF troops of BOP Bagli Ex-73 Bn deployed in West Khasi Hills district of Meghalaya apprehended one Indian national namely Sahinul Islam aged 30 yrs s/o Abdul Kalam, r/o VPO & Ps- Mankachar, Distt- Dhubri (Assam) while he was collecting illegal hawala money to the tune of Rs 20,130/-(Twenty Thousand, one hundred thirty) from one Bangladeshi national, who managed to escape near BP No. 1195/5-T.
During the search, party recovered following items from his possession, Nokia mobile with one Indian and one BD SIMs, 01 PAN Card ,01 ID card.
On another incident, on 23rd Jan 2013, BSF troops of BOP Gasuapara Ex-132 Bn BSF deployed in South Garo Hils district apprehended one Bangladeshi national namely Aminul Sheikh aged 19 yrs s/o Manto Sheikh, r/o vill- Mirpur Railway Colony Ps- Sirajganj, Distt- Mymensingh (Bangladesh) while he was infiltrating into India from Bangladesh near BP No. 1124/1-S.
 
While on 23rd Jan 2013, on specific input, BSF troops of BOP Nayabazar Ex-108 Bn BSF, deployed in East Khasi Hills district of Meghalaya seized 13 Nos cattle Approx value Rs. 89,700/- (Eight nine thousand seven hundred) while it was being smuggled into Bangladesh near BP 1262/4-S. BSF has always been on the lookout against the cattle smugglers. Accordingly BSF along with Meghalaya police is laying mobile check post on converging points to intercept Cattle going towards border for smuggling as after reaching on Zero line, due to terrain, interception becomes difficult.
Apprehended persons and seized items have been handed over to concerned department for further disposal and legal action as per law of the land.(SP News)   
                  
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 

সীমান্তে বিএসএফের আগ্রাসন অব্যাহত : ঠাকুরগাঁওয়ে কৃষক পঞ্চগড় থেকে ব্যবসায়ী অপহরণ

ডেস্ক রিপোর্ট



« আগের সংবাদ







পরের সংবাদ»



ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের হত্যা, নির্যাতন ও অপহরণ যেন থামছেই না। বাংলাদেশ সরকার ও সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশকে (বিজিবি) বৃদ্ধাঙুলি দেখিয়ে প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো সীমান্তে এ সব অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে বিএসএফ। সবশেষ গতকাল আরও দুই বাংলাদেশীকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে ভারতের বর্বর ওই বাহিনীর সদস্যরা।
আমার দেশ-এর প্রতিনিধিদের সূত্রে জানা গেছে, গতকালের ওই দু’টি অপহরণের ঘটনা ঘটেছে উত্তরের দুই সীমান্ত ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড়ে। এর মধ্যে ঠাকুরগাঁওয়ে নিজ জমিতে কাজ করার সময় অপহরণের শিকার হয়েছেন এক কৃষক। পঞ্চগড়ে অপহৃত হয়েছে একজন এক গরু ব্যবসায়ী।
আমার দেশ-এর ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি জানান, সেখানে অপহরণের ঘটনাটি ঘটে জেলার হরিপুর উপজেলার ডাবুরী সীমান্তে।
অপহরণের শিকার কৃষকের নাম খলিল। তিনি গতকাল সকালে সীমান্ত এলাকায় নিজের জমিতে কাজ করতে গেলে অপহরণের শিকার হন। ডাবুরী সীমান্তের ৩৬৭/২ এস পিলারের ১৫০ গজ ভিতর থেকে ভারতীয় ফুলবাড়ি ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাকে ধরে নিয়ে যায়। আটক খলিল হরিপুর উপজেলার মানিক খারী গ্রামের সাইফুল্লাহর ছেলে ।
কৃষক খলিলকে অপহরণের কথা নিশ্চিত করে ৩০ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পর বিজিবি ও বিএসএফের কোম্পানি কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠকের জন্য চিঠি পাঠানো হয়েছে।
এদিকে আমাদের পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সেখানে অপহরণের ঘটনাটি ঘটেছে জেলার বড়শষী সীমান্তের নাওতরী সরকারপাড়া গ্রামে। সেখানে বিএসএফের অপহরণের শিকার হয়েছেন এক গরু ব্যবসায়ী। গরু নিয়ে ভারত থেকে দেশে ফেরার পথে বিএসএফ সদস্যরা তাকে আটক করে।
পঞ্চগড় ১৮ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল জাকির হোসেন জানান, আবুল হোসেন নামের ওই বাংলাদেশী ব্যবসায়ী, ভারতীয় গরু ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের ডাকে মঙ্গলবার রাতে ভারতে যান। গতকাল ভোরে গরু নিয়ে দেশে ফেরছিলেন তিনি। এ সময় বিএসএফ সদস্যরা তাকে ধরে নিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।
এদিকে আবুল হোসেনকে আটক করে হত্যা করার গুজবে সীমান্তে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিজিবির পঞ্চগড় ১৮ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল জাকির হোসেন জানান, বাংলাদেশী নাগরিক গরু ব্যবসায়ী আবুল হোসেনকে হত্যার বিষয়টি সঠিক নয়। আইন অনুযায়ী বিষয়টি নিস্পত্তি হবে।
 ·  Translate
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
বৈঠকের আগেই ফেরত দিল সাবুকে : হাতিবান্ধায় বিএসএফের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াল বাংলাদেশী কৃষকরা
লালমনিরহাট ও হাতিবান্ধা প্রতিনিধি

লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী সীমান্ত থেকে গতকাল সকালে বিএসএফ আবারও সাবু নামে এক শিশুকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার ৯ ঘণ্টা পর সন্ধ্যায় ফেরত দিয়েছে। এ সময় বাংলাদেশী কৃষকদের হাতে আটক নুর আলম নামে এক ভারতীয় কিশোরকেও বিএসএফের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
বিজিবি ও সীমান্তবাসী জানায়, গতকাল সকাল ৯টার দিকে হাতিবান্ধার সিঙ্গিমারী সীমান্তের ৮৯৪নং মেইন পিলারের ৫/এস এলাকায় ভারতীয় কৃষক আইউব আলী তার কৃষি জমিতে কাজ করছিল। পাশেই বাংলাদেশী কৃষক আতিয়ার রহমানের ছেলে অবুঝ শিশু হাসানুজ্জামান সাবু তাদের জমিতে সেচ কাজ দেখছিল। এ সময় ভারতীয় কৃষক আইউব শিশুটিকে তার শ্যালো মেশিন স্টার্ট করার জন্য টিইউবওয়েল চেপে দিতে অনুরোধ জানায়। অবুঝ সাবু কোনো কিছু না বুঝেই ভিনদেশী কৃষকের কথামতো টিউবওয়েলে পানি তুলে দিতে গেলে অদূরে ওঁত্ পেতে থাকা ফুলবাড়ি ক্যাম্পের এক বিএসএফ সদস্য জোর করে তাকে ধরে নিয়ে যায়। এমন ঘটনায় হতবাক হয়ে পড়েন ভারতীয় কৃষক আইউব। মুহূর্তে ঘটনাটি জানাজানি হলে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন বাংলাদেশী কৃষকরা। তারা তাত্ক্ষণিকভাবে বিষয়টি সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্পকে অবহিত করেন। বিজিবি এর প্রতিবাদ জানিয়ে চিঠি পাঠান। পত্র পেয়ে গতকাল বিকাল ৬টায় পতাকা বৈঠকে বসার কথা জানায় ভারতের ফুলবাড়ি বিএসএফ ক্যাম্প। কিন্তু সে অপেক্ষা আর সহ্য হচ্ছিল বাংলাদেশ সীমান্তবাসীর। আর তাই বিএসএফের ওই আগ্রাসনের প্রতিবাদে সিঙ্গিমারী সীমান্তে জড়ো হওয়া শত শত কৃষক মুহূর্তে ভারতীয় কিশোর নূর আলমকে ধরে এনে বিজিবির কাছে সোর্পদ করেন।
গতকাল সরেজমিন দেখা যায়, কাঁটাতারের ওপারে ভারতীয় নাগরিকরা বিএসএফের গাড়ি থামিয়ে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। অবস্থা বেগতিক দেখে বিকাল ৬টায় বিজিবি-বিএসএফের নির্ধারিত পতাকা বৈঠকের এক ঘণ্টা আগেই বাংলাদেশী শিশুকে ফেরত দেয় বিএসএফ। পাশাপাশি ভারতীয় কিশোর নূর আলমকেও বিএসএফের হাতে হস্তান্তর করেন সংশ্লিষ্ট বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা।
বিএসএফ কর্তৃক অপহৃত শিশু সাবু তার মায়ের কোলে ফিরে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন। সাবু জানায়, ধরে নিয়ে যাওয়ার সময় এক বিএসএফ সদস্য তাকে মারধর করে। পরে ক্যাম্পে নিয়ে মারধর না করলেও তাকে মদ ও ফেনসিডিল হাতে দিয়ে ভারতের থানায় পাঠাতে চেয়েছিল বলে জানায় সাবু। কিন্তু ভারতের এক কিশোরকে ধরে আনার পর বিএসএফ সেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে।
এ ব্যাপারে লালমনিরহাট ৩১ রাইফেল ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আসলাম জানান, নির্ধারিত পতাকা বৈঠকের আগেই বিএসএফ অপহৃত শিশু সাবুকে ফেরত দেয়। তাই ভারতীয় কিশোর নূর আলমকেও ফেরত পাঠানো হয়েছে।

http://www.amardeshonline.com/pages/details/2012/03/28/138247
 ·  Translate
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
এবার আসুন, এয়ারটেলসহ সকল ভারতীয় পণ্য, সেবা, বিনোদন গ্রহণ থেকে বিরত থাকি।



সরকারের নির্লিপ্ততা সীমান্তে ঝুঁকি বাড়াচ্ছে : নির্লিপ্ততা বিএসএফকে আগ্রাসী করছে - ফজলুর রহমান : জনপ্রতিরোধের বিকল্প নেই - অধিকার
বশীর আহমেদ
http://www.amardeshonline.com/pages/details/2012/03/05/134778
বিএসএফের অব্যাহত হত্যাকাণ্ড এবং এ ব্যাপারে ভারত সরকারের মিথ্যা প্রচারণার ব্যাপারে সরকারের নির্লিপ্ততা সীমান্তে ঝুঁকি বাড়াচ্ছে। কূটনৈতিক...
Expand this post »


বিএসএফের অব্যাহত হত্যাকাণ্ড এবং এ ব্যাপারে ভারত সরকারের মিথ্যা প্রচারণার ব্যাপারে সরকারের নির্লিপ্ততা সীমান্তে ঝুঁকি বাড়াচ্ছে। কূটনৈতিক এবং নিরাপত্তা ...
 ·  Translate
বিএসএফের অব্যাহত হত্যাকাণ্ড এবং এ ব্যাপারে ভারত সরকারের মিথ্যা প্রচারণার ব্যাপারে সরকারের নির্লিপ্ততা সীমান্তে ঝুঁকি বাড়াচ্ছে। কূটনৈতিক এবং নিরাপত্তা ...
1
Add a comment...
Have him in circles
187 people
Atiqur Sujan's profile photo
Basharat ALi's profile photo
Aminul Islam's profile photo
baul gaan's profile photo
Aiuyb Ali's profile photo
Dhorbin islam's profile photo
Kamrul Hasan's profile photo
ami rahat's profile photo
kamal mllah's profile photo

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
this is india
BSF abducts Bangladeshi from Jhenaidah border
Our Correspondent . Jhenaidah


India’s border guards of the Chhutipur camp abducted a Bangladeshi from Srinathpur at Maheshpur in Jhenaidah on Thursday morning.
A flag meeting between the Border Guard Bangladesh and India’s Border Security Force failed about the return of the Bangladeshi.
Havildar Lokman Hossain, of the Srinathpur BGB camp, said that Indian guards had abducted Ziaur Rahman, 30, of Shyampur, when he went near the barbed-wire fencing.
BGB officials said that a flag meeting was held between the Srinathpur BGB camp commander Havildar Solaiman Hossain and the Chhutipur BSF camp commander Ajit Kimar in the afternoon.
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
this is india
BSF apprehends one

January 20th, 2013


Print Email this Article

SHILLONG: BSF troops of Bagli, deployed in West Khasi Hills apprehended one Indian exporter of Dakhar company identified as Srikshon Dhaovso (60) while he was collecting money to the tune of Rs 1 lakh illegally from a Bangladeshi national.

The amount was meant for excess coal that was being exported from India to Bangladesh.
In another incident, BSF troops of Naljuri on Thursday apprehended two Bangladeshi immigrants while they were trying to infiltrate into India. The arrested persons have been identified as Radium Manner (33) and Satty Sumgos (28), both hailing from Maulavi Bazar district of Bangladesh.
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
see the world  
BSF picks up Bangladeshi cattle trader from Panchagarh border

Reported by: UNBconnect
Reported on: January 23, 2013 20:26 PM
Reported in: National
Panchagarh, Jan 23 (UNB) - Members of Indian Border Security Force (BSF) picked up a Bangladeshi cattle trader from Naotari Berubari village at Baroshashi union in Boda upazila on Wednesday. 

The victim was identified as Abul Hosen, alias Sona Uddin, 50, a cattle trader. He hails from the village. 

Witnesses said, a patrol team of Saatkura Berubari BSF camp of India intruded into Bangladesh through the 774 number main pillar and caught Abul Hoen while working at Naotari frontier village in the morning. 

BSF beat him and dragged him into India, they added. 

When contacted, Company Commander of Baroshashi Danakata BGB camp Nayek Subedar Sirajul Islam confirmed the incident. He said that BGB sent a letter to BSF asking them return the captive. He said BSF offered to hold a flag meeting over the incident.
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
এভাবে আর কত দিন চলবে বিবিধ প্রসঙ্গ ॥ মাসুদ মজুমদার ॥

ভারতের একটি মানচিত্রে বাংলাদেশকে সে দেশের অংশ হিসেবে দেখানো হয়েছিল। এ নিয়ে আপত্তি উঠেছিল, শেষ পর্যন্ত কী হয়েছে কেউ জানে না। সমপ্রতি কেরালায় ভারতের আশপাশের সব দেশকে ভারতের অংশ দেখিয়ে পাঠ্যপুস্তক ছাপানো হয়েছে। ‘বৃহৎ ভারত’ ও ‘অখণ্ড’ ভারত-ভাবনা থেকে ‘ইন্ডিয়া ডকট্রিন’-এর জন্ম। ভারতের কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকার সুযোগ পেলেই দাদাগিরির মাধ্যমে সেটি প্রতিবেশীদের বুঝিয়ে দিতে ভুলও করে না, কার্পণ্যও করে না। আমাদের স্বাধীনতা-ভাবনায় ভারত আসে দু’ভাবে। প্রথম ভাবনায় সাহায্যের জন্য কৃতজ্ঞতায় মাথা নুইয়ে পড়ে। আবার আমাদের টিকে থাকার প্রশ্নে ভারতের অসহযোগিতায় ক্ষোভের আগুন জ্বলে ওঠে। এরই প্রেক্ষাপটে আজকের লেখা।

ছিটমহলবাসী অনশনে গেল, সরকার কোনো কথা বলল না। প্রশ্ন, ৪০ বছরেও তারা কি স্বাধীন দেশে পরাধীন হয়ে থাকবে? যে ভারত আমাদের স্বাধীনতায় এত সাহায্য-সহযোগিতা করল তারা কেন আমাদের মাথা তুলে দাঁড়াতে দিতে চায় না? আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব তাদের কাছে মর্যাদাহীন, বাজারটাই আসল। ভারত নিজের স্বার্থ এক রত্তি ছাড় দিচ্ছে না, আদায় করে নিতে চাচ্ছে ষোলো আনা। ভারতের এত অহমিকার কাছে আমাদের স্বাধীনতা যেন তাৎপর্যহীন।
স্বাধীনতা, ব্যাপক অর্থবোধক শব্দ। বহুমাত্রিক অর্থ ও ধারণা নিয়ে এটি একেকজনের কাছে একেকভাবে ধরা দেয়।
প্রথাগত ক্রীতদাসের কাছে স্বাধীনতা যেভাবে ধরা দেয়, সাধারণ কারাবন্দীর কাছে সেটি কিছুটা ভিন্ন অর্থ বহন করে। অনেক আদিবাসী কিংবা উপজাতি স্বাধীনতা উপলব্ধি করে তাদের মতো করে। বিভিন্ন নৃগোষ্ঠীর কাছেও স্বাধীনতা সমান অর্থ বহন করে না। মরুবাসী বেদুইন, অরণ্যবাসী মানুষ স্বাধীনতাকে তাদের মাত্রাজ্ঞান দিয়ে বুঝতে চায়। তবে সমাজবদ্ধ মানুষ যখন রাষ্ট্রাচারে অভ্যস্ত হয়ে উঠল- তখন স্বাধীনতা অন্যমাত্রিক ব্যঞ্জনা ও দ্যোতনা নিয়ে ধরা দিলো।

নানাভাবে মানুষই মানুষের জন্মগত স্বাধীনতা কেড়ে নিতে চায়। একশ্রেণীর মানুষ অপর শ্রেণীর ওপর শ্রেষ্ঠত্ব প্রকাশ করতে চায়। এই শ্রেষ্ঠত্ব প্রকাশের ভাষাই প্রভুত্ব থেকে উৎসারিত হয়। এখানে একদল শাসক সাজে, অন্যরা শাসিত। একটি গোষ্ঠী প্রভু, অন্যরা ক্রীতদাসতুল্য। শাসন-শোষণ ও অবদমিত করে রাখার অর্থই হলো পরাধীন করে রাখা। সঙ্গত কারণেই ক্রীতদাসের মানস আর মুক্ত মানুষের চিন্তা এক হয় না। স্বাধীনতার ধারণাও জনে জনে মনে মনে পার্থক্য সৃষ্টি করে। এ কারণেই মানসিক গোলামেরা স্বাধীনতার আবেগ লালন করে কিন' অহম বোঝে না। অন্যের ওপর নির্ভরশীল হয়ে ওঠে, আত্মমর্যাদা বোঝে না। অস্তিত্ব বিসর্জন দেয় কিন' সার্বভৌমত্বের বৈশিষ্ট্য অক্ষুণ্ন রাখতে পারে না।

সহজাতভাবে মানুষ প্রভুত্বকামী। মানুষ মানুষের ওপর প্রভুত্ব করার উদগ্র বাসনা লালন করে বলেই মানুষের ভেতর শ্রেণিভেদপ্রথা চালু হতে পেরেছে। এখানে মানুষ দাস ও প্রভুতে রূপান্তরিত হয়। সব ঐশীগ্রনে' মানুষকে সমান মর্যাদার বুদ্ধিবৃত্তিক প্রাণী ভাবা হয়েছে। মানুষের ওপর মানুষের কোনো শ্রেষ্ঠত্ব রাখা হয়নি। মানুষের সাথে মানুষের পার্থক্য আছে যোগ্যতার। তারতম্য হয় চেহারায়, অবয়বে। আর থাকে জ্ঞানবুদ্ধির ফারাক, বোধবিশ্বাসের দূরত্ব। সাধারণভাবে মানুষ সৃষ্টির সেরা। এমন ধারণা থেকেই রাষ্ট্র মানুষের প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন হিসেবে স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের অর্থ খুঁজে পেয়েছে, নীতি প্রণয়ন করেছে, পররাষ্ট্র নীতির স্বাধীন বৈশিষ্ট্য রচনা করেছে।

ইসলাম স্বাধীনতার একটি সার্বজনীন ব্যাখ্যা ও সংজ্ঞা উপস'াপন করেছে। সৃষ্টির সেরা মানুষ। মানুষ মানুষের প্রভুত্ব করবে না। মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে একমাত্র সৃষ্টিকর্তার আনুগত্য করার জন্য। এ কারণেই বলা হয়, মানুষ কলেমা পড়ে শুধু ঈমানের ঘোষণা দেয় না, নিজেকে স্বাধীন বলেও ঘোষণা করে। কারণ কলেমা পড়ার পর মানুষ আর মানুষের প্রভুত্বের আওতায় থাকে না। প্রভুত্ব সংরক্ষিত হয়ে যায় একমাত্র সৃষ্টিকর্তা বা আল্লাহর জন্য। অবশিষ্ট দায়দায়িত্ব ও আনুগত্য মানুষ অধিকার ও কর্তব্যজ্ঞান থেকে বিধিবিধান তৈরি করে অনুসরণ করে।

রাষ্ট্রবিজ্ঞান স্বাধীনতার একটি রাজনৈতিক সংজ্ঞা নির্ধারণ করেছে। কিছু অধিকার ও দায়বোধ নিয়ে মানুষ সমঝোতার ভিত্তিতে রাষ্ট্র গড়ে। রাষ্ট্র একটি সার্বভৌম প্রতিষ্ঠান। এর একটি সরকার থাকবে। নির্ধারিত সীমার ভেতরে এর জনগোষ্ঠী বসবাস করবে। নিজেরা সমঝোতার ভিত্তিতে একটি সংবিধান প্রণয়ন করবে। গরিষ্ঠের অভিমত বা ভোট নিয়ে সেটি কার্যকর হবে। রাষ্ট্র নামের প্রতীকী প্রতিষ্ঠানটিকে প্রতিনিধিত্ব করবে সরকার। সরকার গঠন করবে এর জনগণ- সেটা প্রত্যক্ষভাবেও হতে পারে, পরোক্ষভাবেও হতে পারে। সমাজ ও রাষ্ট্র মানুষের ইচ্ছার প্রকাশ। সমাজ ও রাষ্ট্র দুটোই মানুষের জন্য। সৃষ্টিকর্তার দেয়া বিধিবিধানেও মানুষকে সমাজবদ্ধ হয়ে ঐক্য-চেতনায়, ভ্রাতৃত্ববোধে উজ্জীবিত হয়ে, অধিকার ও কর্তব্য-সচেতন থেকে জীবন যাপন করতে বলা হয়েছে।

স্বাধীনতাকে অর্জনের বিষয় ভাবা হয় দুটো কারণে : প্রথমত, এটি একটি বিশেষ জনগোষ্ঠীর ইচ্ছার প্রকাশ ঘটিয়ে আত্মপ্রকাশ করে; দ্বিতীয়ত, এটি যুদ্ধ করে, কূটনৈতিকভাবে, সমঝোতার ভিত্তিতে কিংবা শাসন-শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে লাগাতার লড়াইয়ের মাধ্যমে অর্জিত ফসলও হতে পারে।
পাক-ভারত যেভাবে স্বাধীনতা অর্জন করেছে, বাংলাদেশ স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছে ভিন্নভাবে। একইভাবে দেশে দেশে স্বাধীনতা অর্জনের আলাদা ইতিহাস আছে। আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি ৪০ বছর পূর্ণ হচ্ছে। বাঙালি জাতিসত্তা বাংলাদেশী হিসেবে একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্ম দিয়েছে। আমরা বাঙালি কিন' বাংলাদেশী। পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে বাঙালি রয়েছে- তারা বাংলাদেশী নয়, ভারতের নাগরিক তথা ভারতীয়। তাই রাষ্ট্রাচার ও জাতিসত্তা সব সময় এক লাইনে বা সরলরেখায় সব ভাবের প্রকাশ ঘটায় না।

যেমন ১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্তান ব্রিটিশমুক্তির মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জন করল। দুটো দেশই বহুভাষী মানুষের জনপদ, বহুধর্মীয় গোষ্ঠী ও নৃগোষ্ঠী উভয় দেশে বসবাস করে। ভারত-পাকিস্তান সেই উত্তরাধিকার বহন করে স্বাধীন। আমরা একাত্তর ছুঁয়ে স্বাধীনতার কথা বলছি। মধ্যখানের ইতিহাস অবশ্যই শোষণ-বঞ্চনার। তার পরও ভারতীয় উপমা সামনে রেখে বিষয়টিকে মনের বড় ক্যানভাসে নিয়ে ভাবতে উদ্বুদ্ধ করে। সে ক্ষেত্রে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে আমাদের জাতীয় নেতারা অবদান রেখেছেন, অবিনাশী ভূমিকা পালন করেছেন, তাহলে ’৪৭ সালের অর্জন থেকে আমাদের হিস্যাটুকু ভারত কিংবা পাকিস্তানকে বর্গা বা ছাড় দেয়া হবে কেন! কেন খণ্ডিত ইতিহাসচর্চার এমন বেসাতি!

আজকাল স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে শুধু আবেগের বিষয় ভাবা হয় না। কারণ গ্লোবাল ভিলেজের এই যুগে স্বাধীনতাকে আরো জুতসই ব্যাখ্যা করে বোঝার চেষ্টা করা হয়। এখন মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার অনেক বেশি আলোচিত। অর্থনৈতিক শোষণের বিষয়টিও সমালোচিত। রাজনৈতিক নিপীড়ন নিন্দিত প্রসঙ্গ। সাংস্কৃতিক আগ্রাসন, ধর্মীয় অধিকার বঞ্চিত করা, নৃগোষ্ঠীর অস্তিত্ব সংরক্ষণসহ দ্বিরাষ্ট্রিক ও বহুরাষ্ট্রিক সম্পর্কের বোঝাপড়ায় স্বাধীনতার মানদণ্ড নির্ণিত হয়। পৃথিবীর কোনো মানুষ ইরাক-আফগানিস্তানে আগ্রাসন মেনে নেয়নি। ইরাকের পোড়ামাটি ও আফগানিস্তানের ধ্বংসস-ূপ যে নবীন শিশুকে স্বাধীনতার অর্থ শিখিয়েছে- সেটা যুক্তরাষ্ট্রবাসীর বোধগম্যের বাইরে। ফিলিস্তিনি কোনো শিশু কিংবা শরণার্থীশিবির অথবা অধিকৃত অঞ্চলের বাড়ন্ত বয়সের তরুণকে স্বাধীনতা অর্থ খুঁজতে বললে যা বলবে, যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যের শিশু-কিশোর তা বলবে না। জাতপাতে পিষ্ট ভারতীয় তফসিলি জাতিগুলো স্বাধীনতাকে যেভাবে বুঝছে, কাশ্মির-সেভেন সিস্টার বুঝেছে ভিন্নভাবে। মাওবাদীদের ধারণা একেবারে আলাদা। শাসক ও আর্যসমাজভুক্ত বাবুরা বুঝেছে ভিন্নভাবে। একইভাবে বসনিয়া-চেচনিয়ার শিশুরা স্বাধীনতাকে ছুঁয়ে দেখেছে ভিন্নমাত্রিক উপলব্ধি নিয়ে। প্রাসঙ্গিকতার এত সব উপমা টানার অর্থ স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের ধারণা যে এখনো তর্কিত প্রসঙ্গ হয়ে আছে সেটা উপলব্ধি করা। পূর্ব তিমুর ও সুদানও এর বড় উপমা হতে পারে। এখানে এসেই আমরা বিবেচনায় নিতে পারি পশ্চিম বাংলার আজকের ভূমিকার। আমাদের স্বাধীনতার বিপরীতে তাদের অবস'ান রাষ্ট্রবিজ্ঞান অবশ্যই ভেবে দেখতে চাইবে। সেই সাথে দেশে দেশে স্বাধীনতার রূপময়তায় যে ফারাক, সেটাও দায়বোধকে জাগ্রত করবে।

এ জন্যই বলা হয়, স্বাধীনতা ছেলের হাতের মোয়া নয় যে একেবারে সহজলভ্য। আবার অতটা অধরা কিছু নয় যে, একটি জনগোষ্ঠীর চিন্তার ঐক্য, বাসনা ও স্পৃহা আজীবন না পাওয়ার বিষয় হয়ে থেকে যাবে। আরো একটি ইতিহাসকেন্দ্রিক উপমা টানা যেতে পারে। আমরা একসময় স্বাধীন ছিলাম, এই যুক্তি না মানলে ব্রিটিশরা আমাদের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছিল কিভাবে? আমরা স্বাধীনতা হারিয়েছিলাম, তা না হলে পরাধীনতা কিভাবে দুই শ’ বছর আমাদের গ্রাস করে রেখেছিল। বাহাদুর শাহ জাফর, ইসমাইল শহীদ, তিতুমীর, সিরাজউদ্দৌলা, ফকির মজনু শাহ, হাজী শরীয়তুল্লাহ, মুন্সী মেহেরুল্লাহ, সূর্যসেন, ক্ষুদিরাম, হাবিলদার রজব আলীরা কার বিরুদ্ধে কেন লড়েছেন? একাত্তর সাল থেকে ইতিহাস রচনাকারীরা এ প্রশ্নের জবাব দেবেন কিভাবে?

তা ছাড়া জাতীয় কবি নজরুল কোন শিকল ভাঙার গান গাইলেন, কোন কারার লৌহ কপাট ভাঙতে উদ্বুদ্ধ করলেন? নবাব সলিমুল্লাহ, শেরেবাংলা, সোহরাওয়ার্দী, মওলানা ভাসানী, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক উত্তরণ নিয়ে আমরা ক্ষুদ্র চিন্তার গণ্ডিবদ্ধ ভাবনায় দোল খাচ্ছি না তো? ইতিহাসের যোগসূত্র খুঁজে পেতে সচেষ্ট না হলে কিংবা ইতিহাসের যোগসূত্রতা হারালে আমরা কূপমণ্ডূক হয়ে যাবো। নিজেদের অস্তিত্বকেও বিপন্ন করব। হাজার বছরের ঐতিহ্য থেকে আমাদের বৃন্তচ্যুত করে দিতে পারলেই স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের শত্রুরা খুশি হয়। আমরা সে ধরনের ষড়যন্ত্রের গহ্বরে ডুবে যেতে পারি না।
৪০ বছরে পা দিয়ে আমরা দেখছি আমাদের স্বাধীনতার অহঙ্কারকে পাক-ভারত যুদ্ধের বাইপ্রোডাক্ট বানানো হচ্ছে। স্বাধীনতা পাইয়ে দিতে ভারতের করুণা ও অনুদানের খেসারত দিতে দিতে আমরা সন্ধিজালে জড়িয়ে পড়ছি। আমাদের নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেঙে ঢুকে পড়েছে স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের শত্রুরা। জল-জল্লাদদের কারণে মরুকরণে দেশ ছারখার। অর্থনৈতিক শোষণ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে হার মানাচ্ছে। আমরা প্রতিবেশী দেশের পণ্য ও সংস্কৃতির বাজারে রূপান্তরিত হয়েছি। স্বাধীনতা দিবসেও ছিটমহলবাসীর আহাজারি থামানোর কোনো প্রয়াস লক্ষ করা গেল না। পাওয়া, না পাওয়ার হিসাব মেলাতেও দেখলাম না। স্বাধীনতাকে পণ্য বানিয়ে বহুজাতিক কোম্পানির বাণিজ্যটা কিন' দৃষ্টি এড়ালো না।

যে জাতি বাংলা ভাষার মান রক্ষার জন্য লড়াই করেছে, প্রাণ দিয়েছে, সে জাতি এখন হিন্দির জোয়ারে ডুবতে বসেছে। পিণ্ডির পরিবর্তে দিল্লি আমাদের ওপর জেঁকে বসেছে। এ যুগে স্বাধীনতা মানে এক চিলতে জমি নয়; এক খণ্ড কাপড় দিয়ে বানানো পতাকা নয়; অনুশীলন-অযোগ্য একটি সংবিধান নয়; সুরম্য অট্টালিকার অকার্যকর সংসদ নয়; নির্বাচিত কিন' একনায়কতান্ত্রিক মানস-লালিত একটি সরকারও নয়। এখন স্বাধীনতা মানে মৌলিক ও মানবাধিকারের সংরক্ষণ; আইনের শাসনের নিশ্চয়তা; মতপ্রকাশের অবাধ স্বাধীনতা; সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যকারিতা; দেশের সার্বভৌম ক্ষমতা রক্ষায় দেশ রক্ষাবাহিনীর উন্নত মম শির মানসিকতা; পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে সব বিদেশী প্রভুত্ব অস্বীকার করা; দেশের ভেতর সম-অধিকারের ভিত্তিতে অবাধ গণতন্ত্র চর্চার পরিবেশ বজায় রাখা- সর্বোপরি জনমতকে প্রাধান্য দিয়ে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করা। তবেই না স্বাধীনতার অর্থ দাঁড়ায় মাথানত না করা। বন্ধুকে প্রভুর আসনে না বসিয়ে সমমর্যাদা নিশ্চিত করা। সর্বপ্রকার অর্থনৈতিক শোষণ, রাজনৈতিক নিপীড়ন, সাংস্কৃতিক গোলামিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলতে পারা- স্বাধীনতা তুমি আমার অহঙ্কার, অর্জনের সোনাঝরা ফসল, তোমাকে পাবো বলেই এত বিসর্জন মেনে নেয়া।

বাস্তবে ৪০ বছরের মাথায় এসেও আমাদের স্বাধীনতার ইতিহাস নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করা হচ্ছে। ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগে, চিন্তার সততা ও স্বাধীনতার পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস এখন আদালতের কাঠগড়ায়। স্বাধীনতার ঘোষক বিতর্ক সৃষ্টি করা হচ্ছে ঠাণ্ডা মাথায় ও পরিকল্পিতভাবে। সংবিধান এখনো সর্বজনীন দলিলের মর্যাদা পাচ্ছে না। বিতর্কিত সংশোধনী যেন আমাদের নিয়তি। সংসদ নিয়ে উচ্ছ্বাস উবে গেছে। গণতন্ত্র এখনো বোবাকান্নায় গুমরে মরছে। ভিন্ন মত ও রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ যেন অসহ্য। দুই দিন আগে ২৬ মার্চ পালন করা হলো, অথচ স্বাধীনতাকে পাওয়ার আকুতি, আর কী পাওয়ার ও চাওয়ার ছিল- কী পেয়েছি সেই গান এখনো বাজছে। নীতিনির্ধারকেরা এসব নিয়ে ভাবার গরজই বোধ করছেন না- হায়রে স্বাধীনতা- তোমাকে নিয়ে ছলচাতুরির রাজনীতি আর কত দিন চলবে!

স্বাধীনতা দিবসও আমাদের এক মঞ্চে তুলতে পারে না, জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানানোর দায়বোধ করায় না, অবিতর্কিত সংবিধান রচনার তাগিদ দেয় না, গণতন্ত্রের জন্য উদগ্র বাসনা জাগায় না। তাহলে কি ধরে নেয়া হবে আমাদের রাজনীতিবিদেরা শুধুই ক্ষমতান্ধ, ক্ষমতার জন্যই শুধু স্বাধীনতার মতো মহান অর্জনকে অপব্যবহার করেন?
এবার স্বাধীনতার মাসে পরাধীনতার গ্লানিটাও যেন বেড়ে গেল। বিদেশী বন্ধুদের নিয়ে সরকারের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ করে দিলো। বিরোধীদলীয় নেত্রীর সাথে অশোভন ও অগণতান্ত্রিক আচরণের মধ্য দিয়ে সরকার আবার প্রমাণ করল নির্বাচিত স্বৈরাচার কাকে বলে। সরকারি নির্দেশে রূপসী বাংলায় অনুষ্ঠিতব্য মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান নিশ্চয়ই সরকারের বাড়া ভাতে ছাই ছিটায়নি। এর মাধ্যমে বিদেশী বন্ধুদের বিরত করার বদখেয়াল কারো ছিল বলে মনে হয়নি। সরকার কূটবুদ্ধিতাড়িত হয়ে হয়তো চায়নি মিডিয়ায় বিরোধীদলীয় নেত্রীর সরব উপসি'তি। বিদেশী বন্ধুদের সাথে প্রধানমন্ত্রীর খবরের সাথে বিরোধীদলীয় নেত্রীর খবরটা সবাই জানুক- এটাই যেন অসহ্য বিষয় হলো। স্মৃতিসৌধে যাওয়ার পথে বিরোধীদলীয় নেত্রীর ‘যাত্রাভঙ্গের’ কারণটাও অসহিষ্ণু আচরণেরই অংশ। ক্রিকেট নিয়ে বিদ্রূপও রুচিবোধ এবং সাধারণ ভদ্রতাকে আহত করে। আমরা জানি না এর মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম কী সবক পেল, আর ঢাকায় অবস'ানরত বিদেশী বন্ধুরাই বা কী মেসেজ গ্রহণ করল। এসব কর্মকাণ্ডকে কি শুধুই বাড়াবাড়ি বলা হবে! নাকি উসকানিমূলক কাজে উগ্রতার বহিঃপ্রকাশ ভাবা হবে। সরকার কি চাচ্ছে বিরোধী দল বা জোট নো রিটার্ন পয়েন্টে চলে যাক? হয়তো বা সেটাই সরকারের গোপন ইচ্ছা।

প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন দাঁড়ায়- সরকার কি নৈতিক পরাজয়ের সাথে সাথে ব্যর্থতার অনুশোচনায় আক্রান্ত? হয়তো বা তাই। নয়তো এত সব অগণতান্ত্রিক ও আত্মঘাতী তৎপরতার ব্যাখ্যা করা কিভাবে সম্ভব। গণতান্ত্রিক পথ ও পন'া রুদ্ধ করে দেয়ার গোপন ইচ্ছা সক্রিয় না থাকলে কোনো সরকারই দেশকে অসি'র ও অসি'তিশীল করতে চায় না। বর্তমান সরকারের অনেক আচরণই গণতান্ত্রিক ধ্যান-ধারণার বিচারে অগ্রহণযোগ্য। এর শেষ কোথায়? এভাবে আর কত দিনই বা চলবে- এ জিজ্ঞাসার মধ্যেই জাতীয় রাজনীতির ভবিষ্যৎ নিহিত রয়েছে।
 ·  Translate
1
Add a comment...

GIAS UDDIN Ahmed

Shared publicly  - 
 
বৈঠকের আগেই ফেরত দিল সাবুকে : হাতিবান্ধায় বিএসএফের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াল বাংলাদেশী কৃষকরা I
 ·  Translate
1
Add a comment...
People
Have him in circles
187 people
Atiqur Sujan's profile photo
Basharat ALi's profile photo
Aminul Islam's profile photo
baul gaan's profile photo
Aiuyb Ali's profile photo
Dhorbin islam's profile photo
Kamrul Hasan's profile photo
ami rahat's profile photo
kamal mllah's profile photo
Places
Map of the places this user has livedMap of the places this user has livedMap of the places this user has lived
Previously
Azimpur, Dhaka, Bangladesh - Capital
Links
Story
Introduction

In all types of Structural and Architectural materials quality

control, ensuring working quality and procedure,  preparation

work schedule and Master plan. Co-ordination of work with Engineers

and contractor with supervision of work. Also in performing

all types of safety, security and health procedure for smoothly

running construction works .


Language                   Read                 Write                Speak English              Excellent              Excellent            Excellent Bengali             Excellent              Excellent            Excellent

           Urdu                             No                       No                    Good                      

           Chinese (mandarin)      No                      No                      Shallow      

Job Interest :

Building Construction  Maintenance, Safety and Health.Civil Engineering job

cum Interior Decoration, Project co-ordinator, or any suitable.

  

Work
Occupation
In all types of Structural and Architectural materials quality control, ensuring working quality and procedure, preparation work schedule and Master plan. Co-ordination of work with Engineers and contractor with supervision of work. Also in performing all types of safety, security and health procedure for smoothly running construction works .
Employment
  • Dhaka, Bangladesh
    Building construction project coordinator, 1995 - 2011
Basic Information
Gender
Male
Looking for
Friends, Dating, A relationship, Networking
Relationship
In a relationship
Other names
ENGINEER GIASUDDIN