Profile cover photo
Profile photo
Shabnoor Sarker
I'm in the process of becoming the best version of myself. 😎
I'm in the process of becoming the best version of myself. 😎
About
Posts

Post has attachment

Post has attachment
আলহামদুলিল্লা! নতুন বছর শুরুহলো নতুন সুযোগ নিয়ে। আজ @papanaBD তে আমার প্রথম আর্টিকেল লেখার মাধ্যমে তাদের সাথে অফিসিয়ালি কাজ করা শুরু হলো।
লেখায় অনেক ভুল ভ্রান্তি থাকতে পারে তাই লেখা পড়ে আপনার মতামত জানাতে পারেন। দোয়া করবেন যেন ভালো কিছু করতে পারি।

Post has attachment
গত বছরের ফেব্রুয়ারির শেষের দিক থেকে এখন পর্যন্ত গুগলের হিসাব অনুযায়ী ৭% 😂😂😂

#Bangladesh #LocalGuide #LetsGuide
Photo

Post has attachment
বই পড়ার অভ্যাসটা আমার মাঝে আব্বা তৈরি করেছেন। যখন আমি দেখে দেখে বাংলা রিডিং পড়া সবেমাত্র শিখছি এর কয়েকদিন পরেই আব্বা আমার জন্য পারস্য উপন্যাস বইটা নিয়ে আসেন।  বানান করে করে পড়তাম, কঠিন বানানগুলো আব্বাকে জিজ্ঞেস করতাম। আব্বা বলে দিতো। বইয়ের কভার পেইজের ছবির শাহাজাদির ছবি দেখে তার মত ড্রেস কিনে দেবার বায়না ধরতাম। এভাবেই শুরু হয় বই পড়ার অভ্যাস।  কিন্তু ২০১৫ থেকে বই পড়া বন্ধ হয়ে হয় যায়। ২০১৭ পর্যন্ত মনে হয় না ২০ টারও বেশি বই পড়েছি। এরই মাঝে ২০১৭ এর শেষের দিকে বই রিলেটেড কিছু গ্রুপের সাথে পরিচয় হয়। তারা দেখি ২০১৭ তে পড়া তাদের বইয়ের লিস্ট দিচ্ছে। এরপর আমার মনে হলো আমারো কিছু বই পড়া দরকার। এরপর আবার শুরু করলাম বই পড়া। আমি একটা একটা করে বই পড়তাম আর এভারনোটে সেই বই সম্পর্কে আমার চিন্তা ভাবনা লিখে রাখতাম।  আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম ২০১৮ তে একশো বই পড়বো।  সেটা আর হয়ে উঠেনি। তবে এতে আমি নিজের প্রতি  অসন্তুষ্ট না। যেখানে একটানা কয়েক বছর বই পড়া বন্ধ ছিলো সেখানে এ বছরের বইয়ের সংখ্যাটা সন্তুষ্টজনক, আলহামদুলিল্লাহ। এ বছরের বইয়ের লিস্টে থ্রিলার টাইপের বইয়ের সংখ্যা বেশি। অনেক দিন  বই পড়া বন্ধ ছিলো তাই সেই পুরনো অভ্যাস ফিরিয়ে আনার জন্য নিজের পছন্দের ঘরনার বই দিয়েই শুরু করেছি। 


১. A Tale of Two Cities - Charles Dickens : ফরাসি বিপ্লবের প্রেক্ষাপট নিয়ে লেখা বেস্টসেলার অসাধারণ এক বই। এখনে ফরাসি বিপ্লবের বিভিন্ন দিক খুব সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলা হয়েছে।

 

২. Pride and Prejudice - Jane Austin : এই বইয়ের লেখিকা হচ্ছেন রোমান্টিক এজের একজন মহিলা সাহিত্যিক, জেন অস্টেন। তিনি এই নভেলে তখনকার সময়ে মেয়েদের অবস্থান ও অন্যান্য সামাজিক পরিস্থিতি তুলে ধরেছেন নভেলের নায়িকা এলিযাবেথ আর বাকি চরিত্রদের মাধ্যমে। রোমান্টিক এইজে লেখা হলেও এই বইটি পড়ার সময় আপনি বর্তমান সমাজের চিত্র খুজে পাবেন। এই বইটা তার মাস্টারপিস বললেও ভুল হবে না। এ বইটা আমার সবেচেয়ে প্রিয় বইয়ের মধ্যে এই বইটি অন্যতম। 

৩. David Copperfield - Charles Dickens : এটি চার্লস ডিকেন্সের আরেকটি জনপ্রিয় বই। ডেভিড কপারফিল্ড হচ্ছে এই বইয়ের কেন্দ্রীয় চরিত্র। তার কিশোর বয়েসের দুঃখ কষ্ট আর তার জীবনের বিভিন্ন ঘঠনার মাধ্যমে লেখক ভিক্টোরিয়ান যুগের বৈশিষ্ট্য অসাধারন ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন।

৪. ডাবল স্টেন্ডার্ড - সামসুল আরেফিন : "ইসলাম শুধু একটি ধর্মই নয় এটি একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা "এ কথাটি নিশ্চয় শুনেছেন। ইসলাম ধর্ম একটি  পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থা হলেতো এতে একটি জাতির রাজনীতি, অর্থনীতি, কুটনৈতি ইত্যাদি বিভিন্ন কিছুর ডিটেইলস থাকবে, তাইনা? এই বইয়ের লেখক ডক্টর সামসুল আরেফিন গল্পের মাধ্যমে ইসলাম ধর্মের বিভিন্ন রীতিনীতির কথা বলেছেন। অন্য বইয়ের ব্যপারে "এই বইটি পড়তে পারেন" বললেও  এই বইটি বেলায় বলবো "এই বইটি আপনার পড়া উচিত "।  অন্তত ইসলাম ধর্মকে জানার জন্য হলেও বইটি পড়া উচিত।

৫. প্যারাডক্সিকাল সাজিদ - আরিফ আজাদ : বইয়ের কেন্দ্রিয় চরিত্র সাজিদ। বিজ্ঞানের ছাত্র। সে তার যুক্তি দিয়ে ইসলাম ধর্ম নিয়ে নাস্তিকের বিভিন্ন যুক্তি খন্ডন করে। বইটিতে লেখক বলেছেন, এক সময় মানুষ হিমু হতে চাইতো এখন সাজিদ হতে চাইবে। এ নিয়ে অনেক আলোচনা সমালোচনাও হয়েছে। আমি বলবো বইটি পড়ুন, সাজিদের লজিকগুলো অন্তর দিয়ে উপলব্ধি করার চেষ্টা করুন আর ডিসিশন নিন আপনি কাকে বেছে বেছে নিবেন, হিমু নাকি সাজিদ?

৬.  আর্গুমেন্টস অফ আরজু - আরিফুল ইসলাম : 

প্যারাডক্সিকাল সাজিদের মতো এটি আরেকটি বই যেখানে কেন্দ্রীয় চরিত্র আরজু। এই বইয়ে সে তার যুক্তি দিয়ে নাস্তিক ও ইসলাম বিরোধীদের নাস্তানাবুদ করেছে। বইটি পড়লে ইসলাম ধর্ম নিয়ে আপনার অনেক কনফিউশনই দুর হয়ে যাবে।


৭. বিশ্বাসের  যৌক্তিকতা - রাফান আহমেদ : কিছু মানুষ আছে  যারা বিজ্ঞান আর ইসলামকে একসাথে গুলিয়ে ফেলে।  এ বইটা তাদের জন্য। এই বইটা  অনেক  ছোট একটা বই।  কিন্তু বইটিতে বিজ্ঞান আর ইসলাম ধর্মের ব্যাপারে কনফিউশন দুর করার জন্য প্রচুর তথ্য আছে।

৮. The Alchemist - Paulo Coelho :  এই বইটার খোজ পেয়েছি ইংলিশ লিটারেচারের একটা পেইজ থেকে। সেই পেইজে পোস্ট করা হয়, তোমার পড়া সেরা বইয়ের নাম কি? বেশির ভাগ মানুষই এই বইটার নাম কমেন্ট করেছে। তাদের মতে এটি এজটি অসাধারণ মুটিভেশনাল বই।  আলকেমিস্ট নাম দেখে আমি প্রথমে ভাবছিলাম হতো রসায়নের কোন বই বা কোন রসায়নবিদের জীবনকাহিনী, তার জীবনসংগ্রামের গল্প হবে। কিন্তু বইটি আসলে কোন রসায়নবিদের কাহিনি নিয়ে লেখা না। পাউলো কোয়েলহোর বিখ্যাত এই বইটিকে আধুনিক ক্লাসিকের পর্যায়ে রাখা হয়। বইয়ের প্রধান চরিত্র হচ্ছে সান্তিয়াগো নামের এক রাখাল। সে শুধু দেশ ভ্রমনের জন্যই রাখাল হয়েছে। সে ছুটে চলেছে তার স্বপ্নের পথে, স্বপ্নে দেখা গুপ্তধন সন্ধানের পথে। স্বপ্ন পূরনের এই অভিযানে তার সাথে দেখা হয় সলোমানের রাজার। সেই রাজা তাকে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেয় আর দেয় দুটি পাথর। এরই মাঝে সে এক প্রতারকের কবলে পড়ে সব হারিয়ে নিঃস হয়ে পড়ে।  এরপর কি হয়?  সান্তিয়াগো কি শেষ পর্যন্ত তার লক্ষে পৌছাতে পারে নাকি সব হারিয়ে  বাড়ি ফিরে আসে? এটা জানার জন্য বইটা পড়া উচিত। লেখক এই বইয়ে বলেছেন, "আর যখন তুমি কিছু চাও, পুরা সৃষ্টিজগতে সাড়া পরে যায়। ফিসফাস করে তোমাকে সাহায্য করার জন্য কোমর বেধে নেমে পড়ে সবকিছু। " এই কথাটা কতটুকু সত্য তা জানার জন্য হলেও পড়া উচিত। এখানে একটা ব্যাপার আমার খুব ভালো লেগেছে সেটা হলো একটা রুটিওয়ালার কথা বলা হয়েছে যে ভ্রমন করতে চাইতো। কিন্তু পরে রুটির কারখানা করে টাকাপয়সা জমাবার চিন্তা করলো। যেখানে ভ্রমন করার জন্য রাখাল হওয়ার সিদ্ধান্তটা হতো সবচেয়ে ভালো সিদ্ধান্ত।  এরপর যখন সে দেখলো মানুষ একজন রুটির কারখানার মালিককে রাখালের চেয়ে বেশি সন্মান করে, মেয়েকে বিয়ে দেবার ক্ষেত্রে রাখালের চেয়ে রুটিওয়ালার প্রাধান্য বেশি। তখন সে তার ব্যবসা নিয়েই থাকলো। ভ্রমন করা আর হলো না। নিজের ইচ্ছাটাকে প্রাধান্য দেওয়ার থেকে তার কাছে মানুষ তাকে নিয়ে কি ভাবছে সেটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠলো। আমরাও এই রুটিওয়ালার মতোই। মানুষ কি ভাববে সেটা নিয়েই পড়ে থাকি। ভুলে যাই আমাদের মনের ইচ্ছের কথা। এই বইটি পড়ার ক্ষেত্র আমার পরামর্শ থাকবে বইটির ইংরেজি ভার্সনটি পড়ার।  সহজ ও সাবলীল ইংরেজিতে লেখা এই বইটি এই বইটি পড়ে পাঠক ইংরেজি শিখার পাশাপাশি  পাবেন জীবনে সামনে এগিয়ে চলার অনুপ্রেরণা।

৯. The Devil and Miss Prim - Paulo Coelho : মানুষের জীবনের বড় ধরনের  পরিবর্তনগুলো খুব অল্প সময়েই চলে আসে আর এর মঝেই সেই পরিবর্তনের শুভ অশুভ দিক বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হয়।  তেমনি এক পরিবর্তনের সম্মুখীন হতে চলেছে ভিসকোস শহরে অধিবাসী।  এ গ্রামের সবকিছুই ঠিকঠাকমতো চলছিলো। কিন্তু হঠাৎ করে এক আগন্তুক এসে যখন ভিসকোসের অধিবাসীদের বীভৎস এক প্রস্তাব দেয় তখন থেকেই পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে শুরু হয়। এ যেন ইশ্বর আর শয়তান,  শুভ আর অশুভের মাঝে এক লড়াইয়ের সামিল হতে চলেছে এলাকাবাসী। গ্রামের এক বুড়া মহিলা বার্টা দেখেছে সেই আগন্তকে শয়তানকে সংগি হিসেবে পেতে।  গ্রামের এই পরিস্থিতিতে মিস প্রিম কি পারবে আগন্তুকের সেই বীভৎস প্রস্তাব থেকে গ্রামবাসীদেরকে শুভ পথে ফিরিয়ে আনতে? 

১০. The Spy - Paulo Coelho : আগেই বলেছি The Alchemist পড়ে পাউলো কোয়েলহোর ফ্যান হয়েছি সেটা আগেই বলেছি। সত্যি কথা বলতে কি এই বাইটি শুধু পাউলো কোহেলহোর নাম দেখেই কিনে ফেলেছি বইটি লেখা হয়েছে নামে মাতা হারি একজন মহিলাকে নিয়ে যিনি জীবনে বহু গাত প্রতিঘাত পেরিয়ে সফল একজন নর্তকী হয়েছেন এবং বহু সুনাম কুড়িয়ে খুব ভালো একটা অবস্থানে আছেন। তিনি একজন স্বাধীনচেতা নারী, নিজের মতো বাচতে চেয়েছিলেন, কিন্তু কিছু ছায়া নারীর পিছু ছাড়ে না এ কথাটা সত্য প্রমানের জন্যই মনে হয় মাতা হারির জীবনে নেমে আসে বিপর্যয় আর তিনি হয়ে গেলেন দেশদ্রোহী এক স্পাই। এরপর এ অপরাধে তাকে ফাসিও দেয়া হলো।  আসলে তার অপরাধ কি ছিলো, দেশদ্রোহিতা নাকি নিজের মতো করে স্বাধীনভাবে বাচতে চাওয়া?

১১. বাই দ্য রিভার পিদরা আই সেট ডাউন এন্ড উইপ্ট - পাউলো কোয়েলহো :  ভালোবাসা আর আধ্যাত্মিকতা নিয়ে লেখা পাউলো কোয়েলহোর আরেকটি অসাধারণ বই।


১২. রিটা হেওয়ার্থ এন্ড শশাঙ্ক রিডেম্পশন - বাতিঘর : প্রেমিকার মিথ্যে খুনের দায়ে জেলে গিয়ে একমাত্র মুক্তির আশাকে পুজি করে বেচে থাকার কাহিনী নিয়ে লেখা অসাধারন এক বই। এই বইটির গল্প নিয়ে মুভি ও বানানো হয়েছে।

১৩. Fire and Fury : বছরের শুরুতেই এই বইটা নিয়ে বিতর্ক চলতেছিলো। লেখকের দাবি তিনি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে তার সাক্ষাৎকার আর ট্রাম্পের কাছের ২০০ মানুষের সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে বইটি লিখেছেন। তার ব্যাপারে এবং হোয়াইট হাউজ সম্পর্কে অনেক অজানা আর গোপন সব তথ্য নিয়ে লিখেছেন। তিনি ট্রাম্পের মানষিক স্বাস্থ্য নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। তাছাড়া, ট্রাম্পের কোন বিশ্বাসযোগ্যতা নেই, তিনি শিশুর মত সবকিছু তাৎক্ষণিক পেতে চান, কিছুই শুনতে চান না এবং বুঝতে চান না এসব কথাও বলা হয়েছে।  অন্যদিকে, বইটি প্রকাশ হবার পর ট্রাম্প একে স্রেফ কল্পকাহিনী বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। ট্রাম্পের দাবি  তার সাথে লেখক ওল্ফের কখনও কথা হয়নি। তবে ওল্ফ বলেছেন, ট্রাম্পের সঙ্গে তার কথা হয়েছে।  আর এই নিয়েই চলছে আলোচনা সমালোচনা।  মূলত, দুইজনের এই ভিন্নধর্মী বক্তব্যই বইটিকে সমালোচিতো করে তুলছে। আর সেই থেকেই আগ্রহ হলো পড়ে দেখার। এই বইটা পুরোটা পড়া হয়নি।


১৪. রবিনসন ক্রুশো - ড্যানিয়েল ডিফো : জাহাজডুবিতে ভাগ্যক্রমে বেচে যাওয়ার পর আত্ম মনোবলের জোড়ে বেচে থাকার কাহিনি নিয়ে লেখা এই বইটি

১৫. টম জোনস


১৬. গালিভার্স ট্রাভেল( আলাদা আলাদা চারটি অঞ্চলে গিয়ে সেখানের মানুষের আচরণের মাধ্যমে পুরো মানবজাতির দোষত্রুটি নিয়ে লেখা অসাধারণ এর স্যাটায়ার এই বইটি।

১৭. Beowulf : বেউলফ কে বলা হয়ে থাকে ইংরেজি সাহিত্যের প্রথম এপিক পয়েম।  এই বইয়ের লেখক অজ্ঞাত।  Angeles নামে জার্মানী ট্রাইব এই গল্পের পান্ডুলিপিটি তাদের সাথে করে ইংল্যান্ড নিয়ে আসে। এই বইয়ের নায়ক হচ্ছে বেউলফ। এ বইয়ে তার বিরত্বগাথা বর্ননা করা হয়েছে। সে দানব গ্রেন্ডেলের সাথে যুদ্ধ করে হ্রাদগার নামের রাজার রাজ্য রক্ষা করে। এরপরে সে রাজা হবার পর আবার গ্রেন্ডেলের মায়ের সাথে তার যুদ্ধ হয়। যুদ্ধের  একসময় এই বীরের মৃত্যু হয়। 

 ১৮. আমি এবং কয়েকটি প্রজাপতি - হুমায়ুন আহমেদ : এক সাইকো টাইপের লোকের বিভিন্ন চিন্তা ভাবনা, তার দৈনন্দিন জীবন কাহিনী নিয়ে লেখা এই বই। 

১৯. কোথাও কেউ নেই - হুমায়ুন আহমেদ : বইয়ের নায়িকা মুনা, খুবই ব্যাক্তিত্ব সম্পন্ন এক মেয়ে।  সে থাকে তার মামার বাসায়। তার মামা, মামানি, মামাতো বোন আর তাদের প্রতিবেশীদের নানা কাহিনী নিয়ে লেখা বই।

২০. আজ চিত্রা বিয়ে - হুমায়ুন আহমেদ : ক্লাস শেষ করে বাসায় ফিরার সময় বাসে বসে সময় কাটানোর জন্য পড়ছিলাম। চিত্রা তার মা বাবা আর তার বিয়ে নিয়ে লেখা।


২১.. বাসর - হুমায়ূন আহমেদ : হুমায়ূন আহমেদের লেখার ফ্যান হলে পড়তে পারেন। 

২২. হিমু রিমান্ডে - হুমায়ূন আহমেদ :  হিমু সিরিজের বই ভালো লাগলে পড়তে পারেন।

২৩. হিমুর মধ্যদুপুর - হুমায়ূন আহমেদ : হিমু সিরিজের আরেকটি বই। 


২৪. আরশিনগর - সাদাত হোসেন : আরশি নামের এক মেয়ের জীবনের নানান চড়াই উৎরাই নিয়ে লেখা অসাধারণ এক বই এটি।

২৫. স তে সেন্টু - জাফর ইকবাল : কিশোর উপন্যাস, সেন্টু নামের এক কিশোরের নানান মজার কাহিনী নিয়ে লেখা।

২৬. ওরা এবং ওদের মায়েরা - সমরেশ মজুমদার : আলাদা আলাদা পরিবার আর পরিবেশে বড় হওয়া দুই মেয়ের বিপথে যাওয়া আবার ইউটার্ন করে আগের সঠিক পথে ফিরে আসার কাহিনী নিয়ে লেখা এই বইটি। 


২৭. ওঙ্কার - আহমেদ ছফা : ছোট্ট একটি বই কিন্তু বইয়ের শেষে যখন আপনি "কার রক্ত বেশি লাল ৬৯ এর গন অভ্যুত্থানে নিহত হওয়া আসাদের নাকি আমার বোবা বউয়ের?" প্রশ্নের মুখোমুখি হবেন তখন সেটা আপনাকে ভাবাবে, আসলেই কার রক্ত বেশি লাল?


২৮.  আরেক ফাল্গুন - জহির রায়হান : কাকডাকা ভোর না হতেই সেদিন দলে দলে তারা এসে জমায়েত হয়েছিলো। মেডিকেল কলেজের পুরনো হোস্টেলে। ছেলে। বুড়ো। মেয়ে। ছাত্র। শ্রমিক। কেরানী। কত লোক হবে? কেউ গুনে দেখেনি। আকাশের তারা গুনে কি শেষ করা যায়? যেদিকে তাকাও সমুদ্রের মতো ছড়িয়ে আছে জনতা। আর সবার কন্ঠে বিদ্রোহের সুর। এরপর  বিদ্রোহ করার অপরাধে একে একে সবাইকেই জেলে যেতে হলো। কিন্ত অদ্ভুদ ব্যাপার হলো জেলের মধ্যে থেকেও তাদের একজন বললো, এতেই ঘাবড়ে গেলেন নাকি? আসছে ফাল্গুনে আমরা কিন্তু দ্বিগুণ হবো। কেন এতো লোক জমা হয়েছিলো,  কিসের বিদ্রোহ,  পরে কেন তারা জেলে গেছে?  জানার জন্য এ বইটি পড়তে পারেন।


২৯. 3am সিরিজ (৬টি বইয়ের একটি সিরিজ) 

৩০. 3:10 am

৩১. 3:21am

৩২. 3:34am

৩৩. 3:46am  : থ্রি এম সিরিজ হচ্ছে নিক পিরোগের ছয়টা বইয়ের একটা সিরিজ। এই সিরিজের ছয় নম্বর বই এখনো প্রকাশিত হয়নি। বইয়ের নায়ক হচ্ছে হেনরি বিনস। সে হেনরি বিনস নামের অসুুুখে ভুগছে। অদ্ভুদ লাগছে শুনতে? আসলে এই রোগে আক্রান্ত রোগি সে ই প্রথম তাই তার নামানুসারে এই রোগের নাম দেয়া হয়েছে হেনরি বিনস। সে চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে তেইশ ঘন্টা ঘুমায় আর এক ঘন্টা সজাগ  থাকে। এই একঘন্টার জীবনে সে তার যাবতীয় কাজ করে থাকে। তার মা তাকে আর তার বাবাকে ছেড়ে চলে গেছে।  এ বইয়ে হেনরি বিনসের সাথে তার পোষা বিড়ালের মজার মাজার কান্ডকারখানা একদিকে যেমন আপনাকে হাসাবে অন্য দিকে তার মায়ের ব্যাপারে অনুসন্ধান করতে গিয়ে সে  যে নানান বিপদের সম্মুখীন হয়, আর কখনো তার বাবা, গার্লফ্রেন্ডের এর সহযোগিতায় উদ্দার পায় সে ঘঠনা আপনাকে এক্সাইটেড রাখবে। আমরা যারা সুস্থ স্বাভাবিক মানুষ তারা চব্বিশ ঘন্টার মাঝে কত সময় হেলা ফেলায় নষ্ট করি আর হেনরি বিনসের কাছে এই একঘন্টা সময় যে কতটা গুরুত্বপূর্ন তা এই বইটি পড়লেই বুঝতে পারবেন। আর আমার মনে হয় এই সিরিজটি পড়া শুরু করলে হেনরি বিনসের মায়ের রহস্য, তার তেইশ ঘন্টা ঘুমানো আর একঘন্টা সজাগ থাকা কি আসলেই কোন অসুখ নাকি কোন গোয়েন্দা সংস্থার এক্সপেরিমেন্টের ফল বয়ে বেড়াচ্ছে হেনরি বিনস? এসব প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য আমার মতো আপনিও হয়তো অপেক্ষা করবেন এই সিরিজের শেষ বইটির জন্য।

৩৪.  ফ্রাঙ্কেইন্সটাইন - মেরি শেলী  : কালোজাদুর মাধ্যমে নিজের বানানো অদ্ভুদ এক প্রানীর হাতের পুতুল হয়ে যাবার কাহিনী নিয়ে লেখা এই বইটি।


৩৫. সাইকো - ববার্ট ব্লক : নরমেন বেটস, মায়ের একান্ত বাধ্যগত এক ছেলে। কিন্তু সে মনে করে তার মায়ের মঝে কিছু সমস্যা আছে।  এ জন্য সে তার মাকে সবার কাছ থেকে লুকিয়ে রাখতে চায়। কিন্তু তারই হোটেলে খুন হওয়া ভিক্টিমের খুনের তদন্তে বেরিয়ে আসে এক ভয়ংকর সত্য। পড়া শেষে মনে হবে এতক্ষন তাহলে কি পড়লাম? কার কথা পড়লাম?


৩৬. পোয়েটিক জাস্টিস - আগাথা ক্রিস্টি : যারা রহস্য সম্রাজ্ঞী আগাথা ক্রিস্টিকে চিনেন আর এরকুল পোয়ারোর ভক্ত তাদের জন্য এটি একটি অসাধারণ বই। পোয়ারো অবসরে গিয়েও জড়িয়ে পড়ে এক খুনের রহস্যে আর খুনিকে পেতে হয় তার পোয়েটিক জাস্টিস। 

৩৭. ১৯৫২ নিছক কোন সংখ্যা নয় - মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন : মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন আর বাতিঘরের থ্রিলারের সাথে পরিচয় হয় এই বইয়ের মাধ্যমে। আর এরপর থেকেই উনার ফ্যান হয়ে গেছি। এই বইয়ে এক সাংবাদিক গাড়ি কিনার প্রথম দিনেই এক্সিডেন্ট করে বসে। আসলেই কি এক্সিডেন্ট নাকি এর পিছনে আছে অন্য কোন গভীর ষড়যন্ত্র? অনুসন্ধান করতেই বেরিয়ে এলো রোমহর্ষক কিছু ব্যাপার। এই বইয়ে লেখক দারুন রসবোধের পরিচয় দিয়েছেন। টান টান উত্তেজনা আর রহস্যে ঘেরা খুবই চমৎকার একটি বই।

৩৮. রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনো খেতে আসেননি - মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন : এটি একটি থ্রিলার ঘরনার বই। মুসকান জুবেরী নামে রহস্যময়ী এক মহিলা একটি রেস্টুরেন্ট দেয় যার নাম রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনো খেতে আসেননি। অঅদ্ভুত এক রেস্টুরেন্ট এটি। এখানে খাবারের এতোই স্বাদ যারা এখানে কজেতে আসে প্রতিটা মানুষ একদম তার আঙ্গুল চেটেপুটে খায়। এই রেস্টুরেন্টের খাবারের এই স্বাদের রহস্য উন্মোচন করে নুরে ছফা নামে একজনের আগমন ঘটে। নুরে ছফার সঙ্গী হয়ে রহস্যময়ী মুসকান জুবেরীর রহস্য উন্মোচন করতে পড়তে পারেন এই বইটি।

৩৯. নিখোজ কাব্য - সালমান হক : একের পর এক করে মেয়ে নিখোজ হয়েই চলছে কিন্তু  কেউ জানে না কেন নিখোজ হচ্ছে তারা আর কারাইবা নিখোজ করছে তাদেরকে। কি হয় অবশেষে?  মেয়েরা কি ফিরে আসে, কারা আছে তাদের এই নিখোজ হবার পেছনে?

৪০. পেন্ডুলাম - মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন : থ্রিলার ঘরনার বই পছন্দ করলে এই বইটি আপনার জন্য।

৪১.প্যারিসের হ্যারিস সাহেব - ফরিদুর রেজা সাগর  : কিশোর গোয়েন্দা কাহিনী টাইপের বই।  



এরপর থেকে (৪২ থেকে ৬৩ নং) সবগুলো থ্রিলার টাইপের বই। থ্রিলার উপন্যাস পছন্দ করলে এগুলো পড়তে ভালো লাগবে। 


৪২. বাজিকর - নাবিল মুহতাসিম

৪৩. বাজি - নাবিল মুহতাসিম

৪৪. শ্বাপদ সনে - নাবিল মুহতাসিম

৪৫. ডানায় আগুন - বাতিঘর প্রকাশনী 

৪৬. একজোড়া চোখ খোজে আরেকজোড়া চোখকে - বাতিঘর প্রকাশনী

৪৭. তিন ডাহুক - সালমান হক

৪৮. নীল নক্সা - মোঃ ফুয়াদ আল ফিদাহ

৪৯. রাত এগারোটা - মোঃ ফুয়াদ আল ফিদাহ

৫০.  আধারের জানালাটা খোলা - সুস্ময় সুমন

৫১. ভেন্ট্রিলোকুইস্ট - মাশুদুল হক

৫২. মিনিমালিস্ট মাশুদুল হক

৫৩. দ্য টেরাটোলজিস্ট

৫৪. ইশ্বরের মুখোশ - জাহিদ হাসান

৫৫. ব্লাকগেট - তাকরিম ফুয়াদ, জাবেদ রাসিন

৫৬. সার্কেল - "

৫৭. ডগমা - "

৫৮. সপ্তশ - বাতিঘর

৫৯. ফোরটি এইট আওয়ার্স - বাতিঘর

৬০ ঋভু - বাতিঘর

৬১. চন্দ্রাহত - বাতিঘর

৬২. নাম তার জুলকারনাইন - মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন

৬৩. সিসিফাসে বন্দী - তানিয়া সুলতানা


সমসাময়িক উপন্যাস : 

৬৪.  আওলাদ মিয়ার ভাতের হোটেল - নিয়াজ মেহেদী

৬৫. রুবির কালো চশমা -  মোস্তফা কামাল 

৬৬. একলা - হাসনাত আবদুল হাই 

৬৭. উধাও - আসিফ নজরুল

৬৮ আবাস - রেজাউর রহমান



মিথলজি :

৬৯. নর্স মিথোলজি - নীল গেইমেন ( রিভিউ : https://myjournal51.blogspot.com/2018/09/blog-post_19.html?m=1

৭০. মিশর পুরান - রজার ন্যান্সেলিন গ্রীন



আত্ম উন্নয়ন মূলক বই : 


৭১. রিচার্জ ইউর ডাউন ব্যাটারি - ঝংকার মাহবুব 

৭৩.  নেভার স্টপ লার্নিং 


অন্যান্য : 

৭৪.  Fantastic Mr. Fox : ইংরেজি শিশুতোষ লেখার অন্যতম পথিকৃৎ রোল্ড ডাহলের ছোটদের জন্য লেখা এই এই বইটিতে বর্ণনা করা হয়েছে চালাক  এক শিয়ালের বিভিন্ন কর্মকান্ডের কথা। ছোটদের জন্য লেখা সহজবোধ্য  এই বইটি ছোট বড় সবার জন্যই মজার একটি বই। 


৭৫. The Old Man and the Sea – Ernest Hemmingway : আর্নেস্ট হেমিংওয়ের এই নোবেলজয়ী সৃষ্টির মূল চরিত্র এক বৃদ্ধ নাবিক। সান্তিয়াগো নামের এই বৃদ্ধ নাবিকের সাগরের বুকে সংগ্রাম করে টিকে থাকার লড়াই নিয়ে এগিয়ে গেছে বইয়ের কাহিনী। টানা ৮৪ দিন মাছ না পাওয়ার ফলে তার সহকারী কিশোর ম্যানোলিন তাকে ছেড়ে চলে যায়। কিন্তু এতেও তার মনোবল টলে না। বৃদ্ধ জেলে তার চেস্টা অব্যহত রেখে  সাগরে পাড়ি জমায় তার পুরোনো ডিঙ্গি নৌকা নিয়ে। হেমিংওয়ের অত্যন্ত সহজ ভাষায় লেখা এই বইটি পড়তে পড়তে আপনার মন আপনাতেই হারিয়ে যাবে অকূল সাগরের জলরাশিততে। 

৭৬. The Giver – Lois Lowry : লইস লাওরির এই বইয়ের মূল চরিত্র এক কিশোর, নাম জোনাস।  জোনাস এমন এক সমাজে বাস করে, যেখানে প্রতিটার মানুষকেই অনেকগুলো নিয়মকানুন মেনে চলতে হয়। স্বাধীনতার কোন নামগন্ধ নেই এখানে। ছোট ছোট বাক্যে সাজানো অত্যন্ত সহজ ভাষায় লেখা এই বইটির কাহিনী প্রথম থেকেই মনোযোগ ধরে রাখে।

৭৭. Charlotte’s Web – E.B. White : এটি আরেকটি শিশুতোষ বই। ছোটদের জন্য লেখা হলেও এই বইটি ছোট বড় সবার কাছেই জনপ্রিয়।  এই বইয়ে এক ফুটে উঠেছে এক শূকরছানার প্রতি এক বাচ্চা মেয়েের ভালোবাসা আর বন্ধুত্ব।  

৭৮. Mieko and the Fifth Treasure – Eleanor Coerr : বইয়ের প্রধান চরিত্র হচ্ছে মেইকু। সে খুবই প্রতিভাবান একনজন ক্যালিওগ্রাফার। জাপানে এক বোমা হামলার সময় তার হাত মারাত্মকভাবে আহত হয়। এরপর সে তার দাদার বাড়িতে আসে থাকার জন্য। সে নতুন স্কুলে ভর্তি হয়, কিন্তু তার ক্লাশমেটারা তাকে নিয়ে হাসাহাসি করে। এরইমাঝে ইয়োসি নামের এক ক্লাশমেটের সাথে তার বন্ধুত্ব হয়। ইয়োশির আন্টি মেইকুকে আবার তার রংতুলি নিয়ে কাজ করার জন্য অনুপ্রাণিত করে।

৭৯. Harry Potter and the Philosopher's Stone – J. K. Rawling : জে কে রাওলিং এর হ্যারি পটার সিরিজের নাম কমবেশি আমরা সবাই শুনেছি। আর এই সিরিজের প্রথম বই এটি। বইয়ের কাহিনি এগারো বছরের এক অবহেলিত বালক হ্যারিকে নিয়ে। যাদুর এক দুনিয়ার সন্ধান পাওয়া আর বন্ধুদের নিয়ে একের পর এক বাধা পেরিয়ে সামনে এগিয়ে যাবার চমৎকার কাহিনী লেখা এই বইটি। পড়ার সাথে সাথে হ্যারির সাথে তার জাদুর দুনিয়ায় পাঠক কখন যে হারিয়ে যাবেন বুঝতেই পারবেন না। 

৮০. দেবী - সেবা প্রকাশনীর ছোট গল্পের একটা কালেকশন। 


এছাড়া কিছু বই আছে যেগুলো কয়েক পেইজ পড়ার পর বাকিটা পড়া হয়নি বা সামনের বছর পড়বো। সেগুলো হলো : 

১. ম্যামসাহেব

২. মনসা

৩.  The Power of Your Subconscious Mind

৪. Success Through a Positive Mental Attitude 

৫.ইসলামী মনোবিজ্ঞান - মাওলানা হেমায়েত উদ্দিন

৬. Be Smart with Muhammad 

৭. অসমাপ্ত আত্মজীবনী 

৮. A Thousand Splendid Sun

৯.The Magic Power of Self Image Psychology 

১০. The Man Who Laughs 



Photo

Post has attachment
আমারা যারা সুস্থ স্বাভাবিক আছি তারাতো খুব সহজেই হেটে কোথাও যেতে পারি, তাইনা? কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছেন যারা হুইলচেয়ার ব্যবহার তাদের ও ইচ্ছে হতে পারে কোন এক শপিংমলে গিয়ে তাদের পছন্দের জামাটা কিনতে কিংবা কোন এক রেস্টুরেন্টে গিয়ে পছন্দের কোন খাবার পরিবার নিয়ে খেতে? কিন্তু সেখানে যদি হুইলচেয়ার প্রবেশের পথ না থাকে তাহলে একজন হুইলচেয়ার ব্যবহারকারী কিভাবে সেখানে যাবে? তাই তাদের পথচলাকে একটু সহজ করতে "চলুন বিজয়ের মাসে মুক্ত করি সকলের পথ চলা" স্লোগানে Google Local Guides Bangladesh বিজয়ের এ মাসে সাড়া দেশে আয়োজন করেছে এক সামাজিক সচেতনতা ও উদ্বুদ্ধকরণ ক্যাম্পেইন। তারই অংশ হিসেবে আমাদের আজকের প্রথম মিট আপ।

#Bangladesh #LocalGuide #LetsGuide
PhotoPhotoPhotoPhoto
12/24/18
4 Photos - View album

Post has attachment

Post has attachment

Post has attachment
Wait while more posts are being loaded