Profile

Cover photo
Zillur Rahman
16,684 views
AboutPostsPhotosVideos

Stream

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
1
morshedali sarker's profile photo
 
Now time to rest of peace,Dorud=bismillah:Allahumma salli ala muhammadiw wa ala ali muhammadin kama sallaita ala ibrahima wa ala ali ibrahima innaka hamidum majid.Allahumma barik ala muhammadiw wa ala ali muhammadin kama barakta ala ibrahima wa ala ali ibrahima innaka Hamidum majid. LA ILAHA ILLA ANTA WA HIDAL LA SANIYA LAKA MUHAMMADUR RASOOULUHI EMAMMUL MUTTAKINA RASULU RABBIL ALAMIN+LA ILAHA ILLA ANNTA NURAII EYAH DIYALLAHU LINU RIHI MAIYASAU MUHAMMADUR RASOOULLULLAHI EMAMUL MURSALINA KHATAMUN NABIEINA+ASAHADU ALLAH ILAHA ILLAHLLAHU WAHDAHU LA-SARIKA LAHU WA ASHADU ANNA MUHAMMABAN ABDUHU WA RASOOULUHU+LA ILAHA ILLAHLLAHU WAHDAHU LA SARIKALAHU,LAHUL MULK WALAHUL HAMDU,WA HUYA'ALAKULLI SHAYIN QADIR+ALLAHUMMA A'NTASS SALAM WA MINKASH SALAMU TABAROKTA EYA JALL JALALII WALL IKRAM-AMEEN SUMMA AMEEN-
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
রুপার বিয়ে-০১
ক’দিন থেকে রুপা অসুস্থ বোধ করছে, মাথাটা কেমন যেন ঝিমঝিম করছে, সবসময় একটা বমি বমি ভাব লেগেই আছে, সে লক্ষ্য করেছে তার শরীরে কিছু অস্বাভাবিক পরিবর্তনও শুরু হয়েছে। কাকে বলবে রুপা তার এই অসুস্থতার কথা? তার মনে হচ্ছে এটা যেন অন্যরকম অসুস্থতা, অন্যরকম কষ্ট, যার সঙে সে কোনদিনই পরিচিত না। তবে কি সেদিনের পর থেকে, সেদিন তমালের সঙে-
1
মোঃ হারুন অর রশিদ (অমি)'s profile photo
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
বিকেলবেলা জামাল রশিদ সাহেবকে মোটর সাইকেলে নিয়ে চলল আনন্দ নগরের উদ্দেশ্যে, কিছুদূর যাওয়ার পর রশিদ সাহেব জিজ্ঞেস করলেন, ভাইজান আমরা কোথায় যাচ্ছি?
জামাল মৃদু হেসে বলল, বসে থাকুন না, দেখুন আপনাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছি?
রশিদ সাহেব আর কিছু বললেন না, মোটর সাইকেলে বসে রইলেন। জামাল মোটর সাইকেল নিয়ে সোজা আনন্দ নগর গিয়ে থামলো।
রশিদ সাহেব মোটর সাইকেল থেকে নেমে বললেন, এবার বুঝেছি।
জামাল বলল, রশিদ সাহেব বলুন তো কী বুঝেছেন?
আপনি আনন্দ নগর যে জায়গা কিনেছেন এটা সেই জায়গা।
হুঁম তা ঠিক আছে কিন্তু জানেন কি জায়গাটা আমি কী জন্য কিনেছি?
কী জন্য?
মনোযোগ দিয়ে শুনুন কাজটা আপনাকেই করতে হবে, এখানে একটা বাগান বাড়ি বানাবো, খামারবাড়ি। এই ধরুন চারপাশে কাঁটা তারের বেড়া থাকবে, গেট দিয়ে ভিতরে ঢুকতেই ফুটপাথ থাকবে। ফুটপাথের দু'পাশে থাকবে সারি সারি ফুলগাছ। বাগানের শেষ প্রান্তে নদীর ধারে থাকবে একটা দোতলা বাংলো, নীচতলা অফিস, ড্রাইভারের থাকার ব্যবস্থা, ড্রয়িং রুম, ডাইনিং রুম, পুরো একটা ফ্যামিলি থাকার ব্যবস্থা থাকবে। উপরে থাকবে একটা ভি.আই.পি রুম, দু'টা বেড রুম, দু'টা রুমের সঙ্গেই থাকবে এ্যটাচ্‌ড বাথ। বাথরুমে বসানো থাকবে টাইলস্‌ এবং অত্যাধুনিক স্যানিটারি ফিটিংস, বাথরুমে থাকবে গরম এবং ঠাণ্ডা পানির ব্যবস্থা। বিল্ডিংয়ের ছাদ হবে টাইল্‌স দিয়ে তৈরি, সেগুন কাঠের সিলিং, রুমে যে বাতিগুলো থাকবে সেগুলো থাকবে সিলিংয়ের কাঠ দিয়ে ঢাকা, কাঠের ফাঁক দিয়ে শুধু আলো বের হয়ে আসবে কিন্তু টিউব লাইট দেখা যাবে না। তাছাড়া সিলিংয়ের নীচে থাকবে বাজারের সব চেয়ে দামি লক্সারিয়াস ঝাড় বাতি, সম্ভব হলে সেগুলো বিদেশ থেকে আনাবেন। নদীর পাশে থাকবে একটা বেলকনি, যে বেলকনিতে দাঁড়িয়ে নীচের দিকে তাকালে দেখা যাবে নদী এবং উপরের দিকে তাকালে দেখা যাবে আকাশ। পূর্ণিমার রাতে যেন বেলকনিতে বসে জ্যোৎস্না উপভোগ করা যায় বলেই জামাল যেন হঠাৎ করেই থমকে গেল। এই কথাগুলো বোধহয় আগেও আপনাকে আমি
 ·  Translate
1
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
শৈশব থেকেই জামাল অত্যন্ত চঞ্চল, চটপটে আর ডানপিটে ছিল। প্রতিদিন স্কুলে কোন বন্ধুর কান টেনে ধরা, গালে চড় দেয়া বা কারো বই ছিঁড়ে দেওয়া এসব ছিল তার নিত্যদিনের অভ্যাস। স্কুলে দেরিতে যাওয়া, টিফিন পিরিয়ডে স্কুল থেকে পালিয়ে বাসায় ফেরা, স্কুলের নাম করে সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমা দেখা, এসব শুরু হয়েছে সেই ক্লাস সিক্সে ভর্তির পর থেকে। পর পর দু’বার ফেল করার পর তৃতীয় বার এস.এস.সি পাস করল। কলেজে ভর্তির সঙ্গে সঙ্গে তার উশৃঙ্খলতা আরো অনেকগুণ বেড়ে গেল। সেই সঙ্গে যোগ হলো তারুণ্যের উচ্ছ্বলতা। একদিন জামাল, তার বন্ধু শরীফ ও আরিফ কলেজের মাঠে বসে চিনাবাদাম খাচ্ছিল। তখন পাশ দিয়ে দল বেঁধে যাচ্ছিল তাদের ক্লাশেরই মেয়েরা।
জামাল শরীফকে জিজ্ঞেস করল, শরীফ ঐ মেয়েটা কে রে?
কেন, পছন্দ হয়েছে না কি?
চেহারাটা সুন্দর, তাই না? জামাল জিজ্ঞেস করল।
আরিফ তিরস্কারের সুরে বলল, কথায় আছে না বেল পাকলে কাকের কী?
জামাল রাগের সুরে বলল, তুই কী বলতে চাচ্ছিস?
শরীফ বলল, আরিফ ঠিকই বলেছে, কোটিপতি ফয়সাল সাহেবের মেয়ে ব্রিলিয়াণ্ট, সুন্দরী এবং বাবার একমাত্র সন্তান। ঐশীকে তোর মতো হেট্রিক করে এস.এস.সি পাস করা জামাইর গলায় ঝুলাবেন না।
জামাল বলল, দেখ দোস্ত আমার পরীক্ষার রেজাল্ট নিয়ে তামাশা করিস্ না, আমা
 ·  Translate
2
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
''অপেক্ষা''
মহান একুশে বইমেলায় নওরোজ কিতাবিস্তান থেকে আমার লেখা উপন্যাস ''অপেক্ষা'' প্রকাশিত হবে। উপন্যাসটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন, নিয়াজ চৌধুরী তুলি।
নদীর চোখে ঘুম নেই। তার এতদিনের অপেক্ষার অবসান হতে চলেছে। আগামী বারো তারিখে মামলার তারিখ আছে প্রকৃত খুনী ধরা পড়ায় সেদিনই মাসুদের জামিন হওয়ার সম্ভাবনা আছে, নাহলে ক’দিন পরেই মাসুদ মুক্তি পাবে। তার দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান হবে। তারপর, তারপর মাসুদের সঙ্গে তার যে দূরত্বর দেয়াল তৈরি হয়েছে তা দূর হবে কীভাবে? আজ এই নিদ্রবিহীন রাতে নদীর বার বার করে তার বাবার কথা মনে পড়েছে। খুব সাধারণ মানুষের অসাধারণ এক দার্শনিকের মতো তত্ত্ব। মানুষের জীবনটা যেন আবহাওয়া বিজ্ঞানের মতো, কখনোই পুরোপুরি মিলবে না। কখনো আংশিক, কখনো যৎসামান্য আবার কখনো সম্পুন্ন বিপরীত। বিজ্ঞানের অগ্রগতি হচ্ছে প্রতি মুহূর্তে, আবহাওয়া বিজ্ঞানেরও অনেক উন্নতি হচ্ছে, আরো উন্নতি হবে। একদিনের অনুমান নির্ভর আবহাওয়া বিজ্ঞান এখন স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নিখুঁত তথ্য দিচ্ছে। আগামীতে ভুমিকম্প, সুনামির মতো প্রাকৃতিক বিপর্যযের পুর্বাভাষ দিবে নিখুঁতভাবে। কিন্তু মানুষের ভাগ্যের পুর্বাভাষ মানুষ জানবে কীভাবে? মানুষের মুখ দেখে তার মনের অবস্থা জানবে কীভাবে? মানুষ কী করে জানবে তার অনাগত দিনগুলি?
 ·  Translate
1
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
মোটর মালিক সমিতির নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের মধ্যে নানা রকম গুঞ্জন শুরু হয়েছে। মোটর মালিক সমিতি একটি অরাজনৈতিক সংগঠন হলেও প্রত্যেক নির্বাচনেই একাধিক প্যানেলে কোন না কোন দলের মৌন সমর্থন থাকে কোন কোন ক্ষেত্রে প্রকাশ্যে রাজনৈতিক মিছিল মিটিং পর্যন্ত হয়ে থাকে এবং রাজনৈতিক দলের নেতারা ভোটে প্রকাশ্য হস্তক্ষেপ করেন। ফলে বেশিরভাগ সময় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলেরই বিজয় হয়।
জামাল মোটর মালিক সমিতির সভাপতি পদে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাসহ বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দেশপ্রেমিক দল পূর্ণ প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। তাই আজকাল জামালের ব্যস্ততা অনেকগুণ বেড়ে গেছে। দিন যতই এগিয়ে আসতে লাগল নির্বাচনী তৎপরতা ততই বেড়ে চলল। জামাল লক্ষ্য করেছে তাকে দলীয়ভাবে মোটর মালিক সমিতির সভাপতি পদে মনোনয়ন দিলেও বেলায়েত সাহেব তাতে সন্তোষ্ট হতে পারেননি।
1
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
মোটর মালিক সমিতির নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের মধ্যে নানা রকম গুঞ্জন শুরু হয়েছে। মোটর মালিক সমিতি একটি অরাজনৈতিক সংগঠন হলেও প্রত্যেক নির্বাচনেই একাধিক প্যানেলে কোন না কোন দলের মৌন সমর্থন থাকে কোন কোন ক্ষেত্রে প্রকাশ্যে রাজনৈতিক মিছিল মিটিং পর্যন্ত হয়ে থাকে এবং রাজনৈতিক দলের নেতারা ভোটে প্রকাশ্য হস্তক্ষেপ করেন। ফলে বেশিরভাগ সময় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলেরই বিজয় হয়।
জামাল মোটর মালিক সমিতির সভাপতি পদে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাসহ বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দেশপ্রেমিক দল পূর্ণ প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। তাই আজকাল জামালের ব্যস্ততা অনেকগুণ বেড়ে গেছে। দিন যতই এগিয়ে আসতে লাগল নির্বাচনী তৎপরতা ততই বেড়ে চলল। জামাল লক্ষ্য করেছে তাকে দলীয়ভাবে মোটর মালিক সমিতির সভাপতি পদে মনোনয়ন দিলেও বেলায়েত সাহেব তাতে সন্তোষ্ট হতে পারেননি। রাজনীতিতে ক্রমাগত বঞ্চনার কারণে তিনি নির্বাচনে খুব একটা সক্রিয় নন। অবশ্য রাজনীতিতে বেলায়েত সাহেবের যে অবস্থান তাতে তিনি আর কোনদিন মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার মতো অবস্থান করে নিতে পারবেন না। তারপরও প্রতিদ্বন্দ্বিকে কখনো ছোট ভাবতে হয় না। জামাল মুখে বেলায়েত সাহেবকে নির্বাচনে তাকে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানালেও সে নিজে বেলায়েত সাহেবের উপর কোন বিষয়ে নির্ভর করল না। তবু জামাল বেলায়েত সাহেবকে সান্ত্বনা দিয়ে বলল, বেলায়েত ভাই আমি আপনাদের হাত ধরে রাজনীতিতে এসেছি। ........
1
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
বিদ্যার কমতি থাকলেও বুদ্ধির কমতি মোটেই নেই। সমস্ত কিছুতেই যেন সে রাম বলতেই রহিম বুঝতে পারে। মেধা থাকা সত্ত্বেও সে উকিল হতে পারেনি বটে কিন্তু মহুরী হিসেবে অতি অল্প বয়সে সে যেন সমস্ত মহুরীর ওস্তাদের স্থান দখল করেছে। রৌমারীর চরে জন্মগ্রহণ করে তিন ভাই বোনের সংসারে খেয়ে না খেয়ে সে যখন প্রথম বিভাগে এস. এস. সি পাস করল তখন শুধু তাদের সংসারেই নয়, চর শৌলমারী গ্রামের ধু ধু বালুচরও যেন আনন্দাশ্রুতে সিক্ত হলো। কিন্তু অর্থাভাবে লেখাপড়ার সমাপ্তি ঘটল সে পর্যন্তই, অবশেষে দূরসম্পর্কীয় এক আত্মীয়ের মাধ্যমে মহুরীর চাকরি জুটল কুড়িগ্রাম শহরের এক স্বনামধন্য উকিল খালেক সাহেবের অফিসে। তার চেহারা আর বয়স দেখে উকিল সাহেব প্রথমে নাক ছিটকালেন কিন্তু পরক্ষণেই রফিকের আপাদমস্তক একবার তাকিয়ে বললেন, কাজ করতে পারবে তো?
রফিক বিনয়ের সাথে মাথা চুলকাতে চুলকাতে বলেছিল, জি স্যার।
 ·  Translate
1
Add a comment...

Zillur Rahman

Shared publicly  - 
 
মহান একুশে বইমেলা-২০১২ নওরোজ কিতাবিস্তান (২১৪-২১৫) এরস্টলে আমার উপন্যাসঅপেক্ষাটীজ করার অপরাধে ছোটনের কোন শাস্তি হলো না, টীজ হওয়ার অপরাধে প্রায়শ্চিত্ত হলো নদীর, লেখাপড়া শিখে বড় হওয়ার স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হলো। বিধবা মা মান-সম্মানের ভয়ে নদীকে বিয়ে দিল।নদীর জীবনে শুরু হলো নতুন সংগ্রাম। স্বামী হাজতে, ননদের বিয়ে হওয়ার পর শ্বশুরবাড়িতে সে আর তার বিধবা শাশুড়ি, বাবার বাড়িতে মা আর ভাইয়ের আবার বিয়ে করে নতুন সংসার করার চাপ। রাস্তায় বেরুলে ছোটনের অত্যাচার। সবকিছু মিলিয়ে নদীর বেঁচে থাকাই যখন কঠিন হলো তখন সে সিদ্ধান্ত নিল ঢাকা যাবে,স্বামীর কাছাকাছি থাকবে, চাকরি করবে, সপ্তাহে একদিন হলেও মাসুদকে দেখতে যাবে কাশিমপুর কারাগারে। নদীর চাকরি হলো কিন্তু এখানেও প্রতিদিন তাকে মুখোমুখি হতে হলো ভদ্রবেশি অনেক ছোটনের। তবু্‌ও নদী মাসুদের জন্য অপেক্ষা করতে চায় অনন্তকাল। হয়ত এই অপেক্ষার দিন শেষ হবে, মাসুদ কারাগার থেকে বেরিয়ে আসবে নদীর প্রতি মাসুদের সন্দেহ আর অবিশ্বাস নিয়ে। তারপর-প্রকাশক:নওরোজ কিতাবিস্তান, ০৫, বাংলাবাজার, ঢাকা।প্রচ্ছদএঁকেছেন: নিয়াজ চৌধুরী তুলি।
 ·  Translate
2
Add a comment...
Links
Contributor to
Basic Information
Gender
Male