Profile cover photo
Profile photo
lakshmipur24.com
97 followers -
Get Latest lakshmipurnews, lakshmipur update, lakshmipurinfo, ramgojnews, ramgonj info, raipurnews, raipur info, ramgotinews, ramgoti info, kamalnagarnews, komolnogor info, laxmipurnews, laxmipur info | Sports Photo Video And Live visit lakshmipur24.com
Get Latest lakshmipurnews, lakshmipur update, lakshmipurinfo, ramgojnews, ramgonj info, raipurnews, raipur info, ramgotinews, ramgoti info, kamalnagarnews, komolnogor info, laxmipurnews, laxmipur info | Sports Photo Video And Live visit lakshmipur24.com

97 followers
About
Posts

Post has attachment
Add a comment...

Post has attachment
“লক্ষ্মীপুর ডায়েরি”

বাংলাদেশের এক সম্ভাবনাময় উপকূলীয় জনপদ লক্ষ্মীপুর। মেঘনা ও বঙ্গোপসাগরের কুল ঘেঁষে গড়ে ওঠা গ্রামীণ এ জনপদে কিছু সমস্যার পাশাপাশি রয়েছে অনেক সম্ভাবনা। এখানে হাজার বছর ধরে সব ধর্মের মানুষ অত্যন্ত ভ্রাতৃপ্রতিম ভাবে বসবাস করে আসছে। এ জেলা ইলিশ আর সয়াবিনের জন্য পুরো দেশে বিখ্যাত। নারিকেল, সুপারি এ জনপদের শত বছরের ঐতিহ্যবাহী স্থানীয় পণ্য। ঘিগজ ধানের মোটা মুড়ি আর চরাঞ্চলের মহিষের দই এ জেলার ঐতিহ্যবাহি খাবার। কিন্তু মেঘনা নদীর ভাঙ্গন এ জনপদের প্রধান সমস্যা।

লক্ষ্মীপুর জেলার কিছু অংশ বাংলার প্রাচীন সমতট জনপদে অর্ন্তভুক্ত ছিল। লক্ষ্মীপুর মূলত সমতটীয় নোয়াখালীর সন্তান। ব্রিটিশ বা ওপনিবেশিক শাসনামলে নোয়াখালীর পশ্চিমাঞ্চলের যে এলাকাটির নামকরণ করা হয় লক্ষ্মীপুর; সেটি ১৯৮৪ সালে জেলার মর্যাদা পায়। নোয়াখালীর সন্তান বলেই এজেলার অধিবাসিরা এখানো নোয়াখাইল্লা নামে পুরো দেশে পরিচিত। লক্ষ্মীপুরের নিজস্ব কোন স্থানীয় ভাষা নেই। নোয়াখাইল্লা আঞ্চলিক ভাষা এখানকার মানুষের প্রধান কথ্যভাষা। ঐতিহাসিক সবকয়টি রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন এবং স্বাধীনতা আন্দোলনে এ জেলার রয়েছে গুরুত্বপূর্ন অবদান ও স্মরণীয় ইতিহাস। অসংখ্য দেশ বরণ্য জ্ঞানী ব্যক্তিদের জন্ম এ লক্ষ্মীপুরে।

লক্ষ্মীপুর ডায়েরি রচনার প্রেক্ষাপট
বিভিন্ন ইতিহাস গ্রন্থে বাংলাদেশ ভূ-খন্ডের জন্ম ৪-১০ হাজার বছরের কথা উল্লেখ থাকলেও লক্ষ্মীপুরের সামান্য কয়েকটি এলাকায় প্রায় ২ হাজার বছরের নানা ঘটনা ও বিভিন্ন শাসনের কথা জানা গেছে। অতীতে এ জনপদে হাজারো ইতিহাস তৈরি হয়েছে। ইতিহাসে স্থান পাওয়া সবগুলো ঘটনা আমাদের প্রয়োজন না হলেও কিছু কিছু ইতিহাস বা ঐতিহাসিক তথ্য বর্তমান প্রজন্মের জন্য প্রেরণা। কিন্তু অনেক সময় সে সব হারিয়ে যাওয়া ইতিহাস ও তথ্য খুঁজে পাওয়া অত্যন্ত কঠিন কাজ। আবার এমন কিছু ঘটনা আছে যা কখনো ফিরে পাওয়ার আশাই করা যায় না।

বর্তমান যুগ তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। এ যুগে তথ্য পাওয়া সহজ। তবে পাওয়া তথ্য কতটুকু নির্ভরযোগ্য তা জানা কঠিন। তাই লক্ষ্মীপুর ডায়েরি নামক গ্রন্থ রচনার মাধ্যমে মূলত লক্ষ্মীপুর জেলার প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস, ঐতিহাসিক তথ্য ও ঐতিহ্য সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যা যুগযুগ ধরে অক্ষত থাকবে। সে প্রেক্ষাপটে লক্ষ্মীপুর ডায়েরি প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়।

প্রকাশনার পরিকল্পনা
২০১২ সালে লক্ষ্মীপুরের ইতিহাস ঐতিহ্য ও তথ্য ভিত্তিক গ্রন্থ “লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’ প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়। লক্ষ্মীপুরের অনলাইন ভিত্তিক সংবাদপত্র লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর সে উদ্যোগ গ্রহন করে। ২০১৩ সাল থেকে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ শুরু করা হয়। কাজটি ছিল অত্যন্ত কঠিন এবং সময় সাপেক্ষ্য। ২০১৭ সালের শেষ দিকে সংগৃহিত তথ্যের পান্ডুলিপি তৈরি শেষ করা হয়। ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যে পুরো জেলার আনুষঙ্গিক ছবি এবং ভিডিও সংগ্রহ করা হয়। তৈরি করা লক্ষ্মীপুর জেলার ৫৮টি ইউনিয়নের পৃথক মানচিত্র। যা বই আকারে আজ আপনাদের হাতে হাতে।

কী আছে এ গ্রন্থে ?
লক্ষ্মীপুর জেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং তথ্য ভিত্তিক একটি বৃহৎ প্রকাশনার নাম ‘‘লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’। ছয় শতাধিক পৃষ্ঠার এ গ্রন্থের ২৬টি অধ্যায়ের প্রতিটি শব্দ জুড়ে রয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলার নানা ইতিহাস আর মৌলিক তথ্য। আছে প্রতিটি বিষয়বস্তু সর্ম্পকিত ছবি এবং ম্যাপ। ইতিহাস বা তথ্যগুলোর এক একটি অনেকের নিকট বহুকাল অজানাই ছিল। কিন্তু এ তথ্যগুলো যুগযুগ ধরে তথ্য পিপাষু মানুষের কাছে অতি আকাংখার ব¯ুÍ ছিল।

এ গ্রন্থের প্রথম থেকে ৬ষ্ঠ অধ্যায় পর্যন্ত স্থান পেয়েছে বর্তমান লক্ষ্মীপুর ভূখন্ডের উৎপত্তি, জনবসতি, ঐতিহাসিক শাসন, সংগ্রাম ইত্যাদি বিষয়ের ওপর বিষয় ভিত্তিক আলোচনা। এগুলো মূলত লক্ষ্মীপুর নামকরণ হওয়ার আগে এ অঞ্চলের ইতিহাস।

সপ্তম অধ্যায় থেকে ধারাবাহিক এবং একক ভাবে লক্ষ্মীপুর জেলার ইতিহাস ও ঐতিহাসিক বিভিন্ন বিষয়ের বর্ণনা দেয়া হয়েছে। ইতিহাস বর্ণনার ক্ষেত্রে সাহিত্য বাদ দিয়ে শুধুমাত্র মূল বিষয়টি নিদির্ষ্ট আকারে বর্ণনা করা হয়েছে।

এবার এক নজরে জেনে নেয়া যাক প্রতিটি অধ্যায়ে কি আছে ?

অধ্যায় ভিত্তিক যা আছে
এ গ্রন্থের প্রথম অধ্যায়ের নাম আলোকপাত। ধারাবাহিক ইতিহাস বর্ণনা শুরুর আগেই লক্ষ্মীপুর সর্ম্পকে বিশেষ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেয়া হয়েছে এ অধ্যায়ে। তাতে স্থান পেয়েছে লক্ষ্মীপুর প্রোফাইল, লক্ষ্মীপুরের জেলা ব্র্যান্ডিং, লক্ষ্মীপুর শব্দের ইংরেজী বানান ও উচ্চারণের মতো কিছু বিষয়।


প্রথম অধ্যায়ে
প্রাচীন যুগের দক্ষিণ বাঙলা, প্রাচীন সমতট জনপদ, নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুরের আদি ভূখন্ডের ইতিহাস রয়েছে।
দ্বিতীয় অধ্যায়ে
প্রাচীন সমতট জনপদ, ভুলুয়া, লক্ষ্মীপুর নামের উৎপত্তি ও জনবসতির ইতিহাস স্থান পেয়েছে।
তৃতীয় অধ্যায়ে
প্রাচীনযুগ থেকে ইংরেজ শাসনামল পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরসহ বৃহত্তম নোয়াখালী অঞ্চলের শাসন ও শাসকগোষ্ঠির ইতিহাস রয়েছে। যেখানে ৪০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এ অঞ্চলে বিভিন্ন রাজবংশীয় শাসন, সামন্ত রাজাদের শাসন, মুসলিম ও মোঘল শাসন এবং ইংরেজ শাসনের খুঁটিনাটি ওঠে এসেছে।
অধ্যায় চার
সাজানো হয়েছে ১৯৪৭ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এ অঞ্চলের সকল জনপ্রতিনিধিদের তথ্য দিয়ে।
পঞ্চম অধ্যায়ে
বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীগণের লক্ষ্মীপুর আগমন, বিশ্বনেতাদের লক্ষ্মীপুর আগমন, রামগঞ্জের হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা, অতীতে জেলা সীমানার অভ্যন্তরে সংগঠিত ওহাবী আন্দোলন, খেলাফত আন্দোলন, ফরায়েজী আন্দোলন এবং সিপাহী বিদ্রোহ সর্ম্পকে তথ্য ও ইতিহাস রয়েছে।
৬ষ্ঠ অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলাব্যাপী বিভিন্ন প্রশাসনিক স্থাপনা প্রতিষ্ঠার সময়কাল ও প্রেক্ষাপট রয়েছে।
সপ্তম অধ্যায়
এ অধ্যায় থেকে শেষ অধ্যায় পর্যন্ত লক্ষ্মীপুর জেলার ধারাবাহিক ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। এতে স্থান পেয়েছে লক্ষ্মীপুরের নামকরণ, বিভিন্ন সময়ে লক্ষ্মীপুরের পরিবর্তিত সীমানা, পরিবেশ ও জলবায়ু, প্রাচীন অর্থনীতির ইতিহাস প্রভৃতি বিষয়।
অষ্টম অধ্যায়ে
বাংলাদেশে উপজেলা পরিষদ গঠন ও উপজেলা নির্বাচনের প্রেক্ষাপট, লক্ষ্মীপুরের উপজেলা সমূহের গঠনকাল, চন্দ্রগঞ্জ থানা গঠনের প্রেক্ষাপট এবং লক্ষ্মীপুরের পাঁচ উপজেলার নামকরণসহ বিস্তারিত ইতিহাস রয়েছে।
নবম অধ্যায়ে
বাংলাদেশে ইউনিয়ন পরিষদ গঠনের প্রেক্ষাপট, তাতে মধ্যযুগের গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদের সকল পরিবর্তন ও ইতিহাস ধারাবাহিক ভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।
দশম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার ৫৮ ইউনিয়নের নামকরণসহ বিস্তারিত তথ্য ও ইতিহাস স্থান পেয়েছে।
এগারতম অধ্যায়
সাজানো হয়েছে জেলার সবগুলো পৌরসভার তথ্যও ইতিহাস দিয়ে।
বারোতম অধ্যায়ে
বাংলাদেশে জেলা পরিষদ গঠনের ইতিহাস এবং লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের নতুন পুরাতন সকল তথ্য ও ইতিহাস জানা যাবে।
তেরতম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার ভৌগোলিক অবস্থান তথা জিইওগ্রাফিক্যাল আইডেন্টিফিকেশন এবং গ্লোবাল পজিশন সিস্টেম ব্যবহারের বিষয়াধি জানা যাবে।
চৌদ্দ অধ্যায়ে
মুক্তিযুদ্ধে লক্ষ্মীপুর জেলার একক অবদান নিয়ে আরো গ্রন্থ প্রকাশের তথ্য সংগ্রহ চলছে। তাই এ গ্রন্থের চৌদ্দ অধ্যায়ে লক্ষ্মীপুর জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস না লিখে মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক তথ্য সংযোজিত হয়েছে।
পনেরো অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার সকল স্তরের শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক ইতিহাস জানা যাবে।
ষোল অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থার বিষয়।
সতেরো অধ্যায়ে
জেলার স্বাস্থ্যসেবাসহ সকল ধরনের সেবার বিষয় জানা যাবে এ অধ্যায়ে।
আঠারো অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার পেশাজীবি, ব্যবসা, বাণিজ্য, কৃষি,অর্থনীতি, জেলার ঐতিহ্যবাহী খাদ্য ও খাদ্য পণ্যের বিষয়ে মৌলিক তথ্য সংযোজিত হয়েছে এ অধ্যায়ে।
উনিশ অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার পর্যটন, দর্শনীয় স্থান, জেলার প্রতœতাত্ত্বিক বিষয়াদি, নদী, খাল, দীঘি ও জলাশয় সর্ম্পকে উপজেলা ভিত্তিক তথ্য সংযোজন করা হয়েছে।
বিংশতম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার বিখ্যাত ঈদগাহ সমূহ এবং জেলার শতাধিক হাটবাজারের ইতিহাস স্থান পেয়েছে একুশ অধ্যায়ে।
বাইশতম অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলার স্থানীয় ভাষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, সাহিত্য, লোকজ মেলা ইতিহাস পাবেন এ অধ্যায়ে।
তেইশতম অধ্যায়ে
এ অধ্যায়ে তুলে ধরা হয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলার সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা।
চব্বিশতম অধ্যায়
লক্ষ্মীপুর জেলার শত বছরের জনসমস্যা ও জনপ্রত্যাশা গুলো কি তা জানতে পড়তে হবে এ অধ্যায়।
পঁচিশ অধ্যায়ে
লক্ষ্মীপুর জেলা সীমানায় জন্মগ্রহনকারি অন্তত দু’শ গুণীব্যক্তির সংক্ষিপ্ত জীবনী তুলে ধরা হয়েছে ।
ছাব্বিশতম অধ্যায়
যাদের অনুপ্রেরণায় লক্ষ্মীপুর ডায়েরির মতো এ বিশাল প্রকাশনাটি প্রকাশিত হয়েছে তাদের মধ্যে কয়েকজন শুভানুধ্যায়ির চিন্তা ভাবনা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বার্তা পড়া যাবে এ অধ্যায়ে।

যাদের অনুপ্রেরণায় লক্ষ্মীপুর ডায়েরির মতো এ বিশাল প্রকাশনাটি প্রকাশিত হয়েছে তাদের মধ্যে কয়েকজন শুভানধ্যায়ির চিন্তা ভাবনা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বার্তা আকারে পড়া যাবে ছাব্বিশতম অধ্যায়ে।

লক্ষ্মীপুর ডায়েরির যত সংস্করণ ও প্রকাশনায় যত প্রযুক্তি

লক্ষ্মীপুর ডায়েরির প্রথম সংস্করণটি প্রিন্ট ভার্সন আকারে প্রকাশিত হয়েছে।

দ্বিতীয় সংস্করণ হবে সংশোধিত ও সংযোজিত প্রিন্ট ভার্সন।

তৃতীয় সংস্করণ প্রকাশিত হবে সিডিতে মাল্টিমিডিয়া-ভার্সন আকারে,

৪র্থ সংস্করণ প্রকাশিত হবে ই-ভার্সন,

৫ম সংস্করণ প্রকাশিত পডকাস্ট বা অডিও ভার্সন আকারে,

৬ষ্ঠ সংস্করণ হবে ইংরেজী ভাষায় ই-ভার্সন আকারে।

প্রিন্ট ভার্সনের পাশাপাশি বইটি পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকে যখন তখন অনলাইনে যাবে। গুগল প্লে থেকে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস ডাউনলোড করেও বইটি পড়া যাবে। বাংলাদেশে এ রকম প্রযুক্তি নির্ভর বই প্রকাশ করার ইতিহাস ইতোপূর্বে তেমনটি নেই। যেটা লক্ষ্মীপুর ডায়েরি প্রকাশের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে। গ্রন্থটি প্রকাশে ডিজিটাল সকল প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে।

সম্পাদকের দাবি
লক্ষ্মীপুর জেলার এমন কোন বিষয় খুজেঁ পাওয়া যাবে না, যা এ গ্রন্থে কমবেশি আলোচিত হয়নি। সে দৃষ্টিকোন থেকে গ্রন্থটিকে লক্ষ্মীপুরপিডিয়া বললেও ভুল হবে না বলে দাবি করেছেন গ্রন্থের সম্পাদক সানা উল্লাহ সানু। পাঠকদের কে আঞ্চলিক ইতিহাস পাঠের ব্যতিক্রম অভিজ্ঞতা প্রদান করবে এ বই।

যাদের কাছে কৃতজ্ঞ:
বইটি প্রকাশের ক্ষেত্রে তথ্য দিয়ে, তথ্য সংগ্রহ করে, তথ্য লিখে এবং নানাভাবে পরামর্শ দিয়ে অনেকেই কমবেশি সহযোগিতা করেছে। এদের সবার কাছে চিরকৃতজ্ঞ লক্ষ্মীপুর ডায়েরি।

গ্রন্থটি কেন সংগ্রহ করবেন? কারা সংগ্রহ করবেন?
লক্ষ্মীপুরের সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ,বিশেষ করে চাকুরী প্রত্যাশি, রাজনীতিবিদ, ছাত্র, শিক্ষক, সাংবাদিক, গবেষক, ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, জেলা পরিষদ, পৌরসভার সকল কর্মকর্তা, বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তাসহ যে কোন নাগরিক। তাছাড়া লক্ষ্মীপুর সর্ম্পকে জানতে আগ্রহী দেশ বিদেশের যে কোন ব্যক্তি এ বইটি সংগ্রহ করতে পারবেন। লক্ষ্মীপুরকে জানতে এ বইটি হবে আপনার ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সেরা উপহার। যেটা আপনি এখনই সংগ্রহ করে রেখে যেতে পারেন। বিভিন্ন উপলক্ষ্যে এ বইটি আপনার প্রিয়জনকে উপহার দিতে পারেন।

সরল স্বীকারোক্তি
এ গ্রন্থের বিভিন্ন তথ্য নির্ভর যোগ্য তথ্যসূত্র থেকে গ্রহনের চেষ্টা করা হয়েছে। সময় সুযোগের কারণে কিছু কিছু বিষয় সর্ম্পকে তথ্য সংগ্রহের অভাবে সে বিষয়গুলো সংযোজন করা যায়নি। এ গ্রন্থে ইচ্ছাকৃত ভুল বা বিকৃত তথ্য উপস্থাপন যাতে না হয় সেদিকে সব সময় খেয়াল রাখা হয়েছিল। তবুও এ বিশাল তথ্যভান্ডার রচনা করতে গিয়ে মনের অজান্তেই ভুল তথ্য থাকা অস্বাভাবিক নয়। এছাড়া শব্দের ভুল, বানান ভুল, মুদ্রণজনিত ভুল, ভুল বাক্যগঠন এবং নানা বাক্যে বিভিন্ন অসংগতি থাকতেই পারে।

পাঠকদের প্রতি অনুরোধ
অনিচ্ছাকৃত ভুল বা বাদ যাওয়া কোন তথ্য আপনাদের চোখে পরিলক্ষিত হলে তার জন্য ক্ষমা ও সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। সাথে সাথে পরবর্তী সংস্করণের জন্য পরামর্শ ও সঠিক তথ্য প্রদান করলে কৃতার্থ হবো। পরবর্তী সংস্করণে সে তথ্যগুলো যোগ করা বা সংশোধনের উদ্যোগ নেয়া হবে। সে জন্য প্রথম সংস্করণ প্রকাশের পরপরই দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরই মাঝে এ সংস্করণে বাদ যাওয়া কোন তথ্য সম্পাদকের হাতে আসার সাথে সাথেই গ্রন্থটির অনলাইন সংস্করণে তা যোগ করা হবে। সে জন্য লক্ষ্মীপুর জেলার যে কোন ইতিহাস, ঐতিহ্য, মৌলিক তথ্য এবং গুণীজনের তথ্য লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোরের নিকট জানানোর জন্য জেলার সকল সচেতন নাগরিকদের প্রতি অনুরোধ রইল।

শেষ কথা
তথ্য হলো শক্তি; আর ইতিহাস হলো জাতির দর্পণ। ইতিহাস জাতির দিক-দর্শন যন্ত্রের মত কাজ করে। প্রকৃত ইতিহাস চেতনা ব্যতীত বর্তমান কে যেমন উপলব্ধি করা যায় না, তেমনি ভবিষ্যৎ নির্মাণ করাও কঠিন। মানবজাতির বিভিন্ন সময়ের রীতিনীতি, জীবন যাপন প্রণালী, আন্দোলন সংগ্রাম, সাফল্য-ব্যর্থতার কাহিনী ইতিহাসে লিপিবদ্ধ থাকে। লক্ষ্মীপুর কেন্দ্রিক সে রকম একটি ইতিহাস নির্ভর তথ্যভান্ডার নির্মাণে আপনাদের নিঃস্বার্থ সহযোগিতা চাই।

ইতি
সানা উল্লাহ সানু
সম্পাদক, লক্ষ্মীপুর ডায়েরি
সম্পাদক, লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম।

যেভাবে “লক্ষ্মীপুর ডায়েরি”পাবেন
গ্রন্থটি পেতে যোগাযোগ করুন: সানা উল্লাহ সানু, ০১৭৯৪ ৮২২২২২, ফেসবুকে fb.com/sanubd

বিকাশ এবং ডাচবাংলার রকেটে মূল্য পরিশোধের পর
সুন্দরবন কুরিয়ার, এসএ পরিবহন, বাংলাদেশ ডাক বিভাগের এক্সপ্রেস মেইল, বিদেশের জন্য ডিএইচএলে বইটি পাঠানোর ব্যবস্থা আছে।

সরাসারি ক্রয় করতে পারবেন
ঢাকা/ চট্টগ্রাম/ লক্ষ্মীপুর/ রামগঞ্জ/ রায়পুর/ কমলনগর/ রামগতি/আলেকজান্ডার এবং চন্দ্রগঞ্জের বিভিন্ন লাইব্রেরি থেকে।

অনলাইনে ক্রয় ও যোগাযোগ:

অনলাইনে বইটি ক্রয় করতে এ লিংকে বা http://bit.ly/2Pa1QQx ঠিকানায় ক্লিক করে বাংলা বা ইংরেজিতে আপনার ঠিকানাটি দিন। অথবা ফোনে 01794 822222 অর্ডার করুন।

বইটি অনলাইনে পড়তে ব্রাউজারে টাইপ করুন: lakshmipur24.com/Ld

ফেসবুকে তথ্য ও মতামত জানাতে ব্রাউজারে টাইপ করুন m.me/lakshmipur24 ev fb.com/lakshmipur24

ইমেইলে তথ্য ও মতামত জানাতে ইমেইল করুন: news@lakshmipur24.com

লক্ষ্মীপুর ডায়েরি প্রকাশের উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান, লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর ডটকম।
www.lakshmipur24.com
চক বাজার, লক্ষ্মীপুর।
ফোন: ০১৭৯৪ ৮২২২২২
Email: news@gmail.com
Inbox: m.me/lakshmipur24
fb.com/lakshmipur24
twitter.com/lakshmipur24
google.com/+lakshmipur24

লক্ষ্মীপুর সর্ম্পকে জানতে অদ্বিতীয় প্রকাশনা ‘‘লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’।

সবাইকে ধন্যবাদ।
#LakshmipurDiary #lakshmipur #LakshmipurDistrict #লক্ষ্মীপুরডায়েরি
Photo
Add a comment...

Post has attachment

Post has attachment

Post has attachment
লক্ষ্মীপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং তথ্য ভিত্তিক বৃহৎ গ্রন্থ ‘‘লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’ LakshmipurDiary

#লক্ষ্মীপুরডায়েরি #LakshmipurDiary #লক্ষ্মীপুর #ডায়েরি #Lakshmipur #Diary
Add a comment...

Post has attachment
লক্ষ্মীপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং তথ্য ভিত্তিক বৃহৎ গ্রন্থ ‘‘লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’ LakshmipurDiary

#লক্ষ্মীপুরডায়েরি #LakshmipurDiary #লক্ষ্মীপুর #ডায়েরি #Lakshmipur #Diary
Photo
Add a comment...

Post has attachment
লক্ষ্মীপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং তথ্য ভিত্তিক বৃহৎ গ্রন্থ ‘‘লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’ LakshmipurDiary

#লক্ষ্মীপুরডায়েরি #LakshmipurDiary #লক্ষ্মীপুর #ডায়েরি #Lakshmipur #Diary
Photo
Add a comment...

Post has attachment
লক্ষ্মীপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং তথ্য ভিত্তিক বৃহৎ গ্রন্থ ‘‘লক্ষ্মীপুর ডায়েরি’’ LakshmipurDiary

#লক্ষ্মীপুরডায়েরি #LakshmipurDiary #লক্ষ্মীপুর #ডায়েরি #Lakshmipur #Diary
Photo
Add a comment...

Post has attachment

Post has attachment
Add a comment...
Wait while more posts are being loaded