Profile cover photo
Profile photo
Amader Electronics
92 followers -
"জ্ঞানই শক্তি যখন তা সবার জন্য উন্মুক্ত"
"জ্ঞানই শক্তি যখন তা সবার জন্য উন্মুক্ত"

92 followers
About
Amader Electronics's posts

Post has attachment

কোডিং এর মাধ্যমে এনিমেশন তৈরি করুন সহজেই - প্রসেসিং টিউটোরিয়াল

আজকে আমরা প্রসেসিং এর মাত্র কয়েকটি লাইনের কোডিং ব্যবহার করে কিভাবে এনিমেশন তৈরি করা যায় সেটি দেখবো। চলুন দর্শকবৃন্দ তাহলে শুরু করি। শুরুতেই বলে রাখাভালো যে এটি খুব ব্যাসিক টাইপের এনিমেশন। বুঝবার সুবিধের জন্য জটিল এনিমেশন এখনি দেয়া হচ্ছে না তবে ধীরে ধীরে আমরা তাও শিখবো।

এনিমেশন ভিডিও টিউটোরিয়াল টিতে আমরা দেখতে পাচ্ছি কন্সোল উইন্ডোতে সার্কেল কে এনিমেট করবার জন্য কিছু কোড করা হয়েছে এবং সেটিকে প্লে বাটনে ক্লিক করে চালু করা হয়েছে। এনিমেশনে দেখতে পারছেন একটি গোল বৃত্ত বা সার্কেল বাম থেকে ডানের দিকে সরে যাচ্ছে। এই সম্পূর্ণ ব্যবস্থাটিই করা হয়েছে কোডিং এর মাধ্যমে।

ভিডিও টিউটোরিয়াল টির ২য় অংশে দেখতে পাচ্ছেন একটি বল উপর থেকে নিচে পড়ছে এবং মাটিতে বাউন্স করে আবার উপরে চলে যাচ্ছে। সেই সাথে কোড উইন্ডোটিও দেখতে পাচ্ছেন।

তার পরের অংশটিতে দেখছেন বলটি মাটিতে ড্রপ করছে কিন্তু বাস্তব জীবনে যেমন বাউন্স ব্যাক করে ঠিক তেমন করেই বাউন্স করছে। অর্থাৎ একবারেই বলটি মাটিতে পরার পর উপরে চলে না গিয়ে কয়েকবার আপ ও ডাউন হচ্ছে, এবং সব শেষে মাটিতে স্থির হয়েছে। একই সাথে এর কোড ও দেখতে পাচ্ছি। এখানে বলে রাখছি, এই প্রসেসিং টিউটোরিয়ালের ডিটেল কোড আমাদের ইলেকট্রনিক্স সাইটের এই লিংকে পাবেন-
http://www.amaderelectronics.com/7039

Post has attachment

Post has attachment
ব্যাটারি ছাড়া আজকের দুনিয়া অচলই বলা যায়। মোবাইল এর রিচার্জেবল ব্যাটারি, আই পি এস এর ব্যাটারি, এমনকি ব্যাটারী চালিত সাইকেল ও আবিষ্কার হয়েছে। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা ৪০০ বছর টিকে থাকতে পারে এমন ব্যাটারিও আবিষ্কার করেছেন। তাও সেটি আবিষ্কার হয়েছে ভুল করে! জ্বী হ্যাঁ, আপনি ঠিকই শুনছেন।

পরিচ্ছেদসমূহ [আড়াল করুন]
1 বিজ্ঞানের ভুল করে আবিষ্কার হওয়া কিছু জিনিস-
2 মূল ঘটনা
3 কীভাবে এই ব্যাটারি ৪০০ বছর টিকবে
4 কবে পাবো এই ব্যাটারী
সাধারণত দুর্ঘটনা কখনোই ভাল কিছু হতে পারে না, বিশেষ করে একটি গবেষণাগারে। যেখানে ছোট একটি দুর্ঘটনা সহজেই বড় একটি দুর্ঘটনা ঘটতে সাহায্য করতে পারে। কিন্তু কখনও কখনও দুর্ঘটনাক্রমেই বড় বড় আবিষ্কার এর পথ খুলে যায়। নিচে ভুল করে আবিষ্কার হওয়া কিছু জিনিসের নাম দেখি-

বিজ্ঞানের ভুল করে আবিষ্কার হওয়া কিছু জিনিস-

সুপার গ্লু
স্যাকারিন
ব্যাকেলাইট
পেনিসিলিন ওষুধ
মাইক্রোওয়েভ ওভেন
এক্স-রে বা রঞ্জন রশ্মি
হার্টের রোগীদের পেসমেকার
টেফলন বা ননস্টিক ফ্রাই প্যানের বিশেষ আবরণ
এমনকি “বিগ ব্যাং” থিওরির আবিষ্কারও হয়েছিল একটি দুর্ঘটনার মাধ্যমে। সুতরাং দেখতেই পারছেন বিজ্ঞানে ভুলের কোন স্থান না থাকলেও ভুল করে আবিষ্কার হওয়া অনেক কিছুই আমরা ব্যবহার করছি
http://www.amaderelectronics.com/6291

Post has attachment
সোল্ডারিং মাস্ক হচ্ছে পিসিবি’র এক প্রকার সুরক্ষা ব্যবস্থা। অনেকেই পিসিবি বানাতে পারেন কিন্তু সোল্ডার মাস্ক দিতে পারেন না। সাধারণত সিসিবি থেকে পিসিবি করলে পরে বাতাসের আদ্রতা উপরের কপার কে ধীরে ধীরে কালো করে দেয়। তা যেন না হয় তাই উপরে সোল্ডার মাস্ক (Solder Mask) ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও পিসিবি কে প্রোফেশনাল লুক আর সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ ও করে এই সোল্ডারিং মাস্ক। আজকের এই লেখায় সোল্ডারিং মাস্ক কীভাবে দিতে হয়, এর সুবিধা, অসুবিধা, বিকল্প বুদ্ধি ইত্যাদি নিয়েই লিখছি।

পরিচ্ছেদসমূহ [আড়াল করুন]
1 সোল্ডারিং মাস্ক কি
2 কেন সোল্ডারিং মাস্ক ব্যবহার করা হয়?
3 সোল্ডার মাস্কের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ
4 প্রথম ধাপ – পিসিবি কম্পোনেন্টের পা গুলো প্রিন্ট করা
5 দ্বিতীয় ধাপ – সোল্ডার মাস্ক দ্রবণ প্রয়োগ
6 তৃতীয় ধাপ – ল্যামিনেটেড শীট কে মাস্কের উপরে স্থাপন
7 চতুর্থ ধাপ – মাস্ক কে সম্পূর্ণ পিসিবি তে ছড়িয়ে দেয়া
8 পঞ্চম ধাপ – পূর্বে প্রিন্ট করা ট্রেসিং পেপার কে এর উপরে স্থাপন
9 ষষ্ঠ ধাপ – ইউভি (UV) অথবা সূর্যের আলোতে কিছুক্ষণ রাখা
10 সপ্তম ধাপ – বোর্ড পরিষ্কার করা
11 অষ্টম ধাপ – আরো কিছুক্ষন সূর্যের আলোতে বোর্ডকে রাখা
12 আমার তৈরি করা গ্রীন কোটিং যুক্ত পিসিবি এর ছবি
13 কিছু জরুরী বিষয় যা না জানলেই নয়
14 কোথায় পাবো এই সোল্ডার মাস্ক
15 সোল্ডারিং মাস্কের বিকল্প বুদ্ধি কি
http://www.amaderelectronics.com/6163

Post has attachment
হাই ভোল্টেজ প্লাজমা গ্লোব/ল্যাম্প তৈরি – মজার বিজ্ঞান প্রজেক্ট
.
হাই ভোল্টেজ প্লাজমা গ্লোব বা প্লাজমা ল্যাম্প বিজ্ঞান মেলার জন্য দারুণ একটি প্রজেক্ট। এটি একটি গোলোকের মধ্যে খেলাকরা কিছু প্লাজমা যেগুলা আসলে হাই ভোল্টেজ স্পার্ক। অনেকটা যেন ছোট গোলকের ভেতরে বজ্রপাতের কৃত্রিম দৃশ্য! আবার কিছু ভুতুড়ে মুভিতেও আমরা প্লাজমা গ্লোব দেখেছি। ডাইনীরা ওগুলা দিয়ে ভবিষ্যৎ বলে দিচ্ছে এমন দৃশ্য আমরা অহরহ মুভিগুলোতে দেখি। আজকের এই টিউটোরিয়াল এ আমরা শিখব কিভাবে একটি টাংস্টেন বাল্ব দিয়ে নিজেই একটি সহজ প্লাজমা গ্লোব তৈরি করতে পারি।

পরিচ্ছেদসমূহ

1 প্রয়োজনীয় উপকরণঃ
2 ধাপ ১ – হাই ভোল্টেজ পাওয়ার সাপ্লাই তৈরি
3 ধাপ ২ – প্লাগ ও রেগুলেটর সংযুক্তকরণ
4 ধাপ ৩ – ক্যাপাসিটর সংযুক্তকরণ
5 ধাপ ৪ – ইগনিশন কয়েল সংযুক্তি
6 ধাপ ৫ – ইগনিশন কয়েলের সাথে অন্য তারটি সংযুক্তি
7 ধাপ ৬ – হাই ভোল্টেজ আউটপুট লাইন বের করা
8 ধাপ ৭ – প্লাজমা গ্লোব/ল্যাম্প তৈরি
9 ধাপ ৮ – প্লাজমা ল্যাম্পের উপর ধাতব নেট স্থাপন
10 প্লাজমা ল্যাম্প/গ্লোব কানেকশন ডায়াগ্রাম
11 শেষ ধাপ:
12 হাই ভোল্টেজ প্লাজমা ল্যাম্প/গ্লোব প্রজেক্টের সচল ভিডিও দখুন
13 পাদটিকা-
13.1 প্লাজমা
বিশেষ সতর্ক বার্তাঃ এই প্রজেক্ট এর সাথে হাই ভোল্টেজ সম্পর্কিত তাই বিশেষ সাবধানতা নিতে হবে। প্লাজমা গ্লোব/ প্লাজমা ল্যাম্প বানানোর সময় আপনার শক খেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে তাই হাতে রাবার এর গ্লাভাস পড়লে ভালো হয়। হাই ভোল্টেজ ট্রান্সফরমার এর সাথে কানেকশন দেওয়ার সময় কিংবা প্রজেক্ট এ মেইন লাইন দেয়া অবস্থায় যেন এর উন্মুক্ত অংশ গুলোর সাথে কোন ভাবেই হাতের স্পর্শ না লাগে সে দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। প্লাজমা গ্লোব বানানোর শেষ হলে গ্লোব স্পর্শ করা যাবে না কারণ এখানে অনেক শক্তিশালী বিদ্যুৎ প্রবাহিত হয় তাই এটি বিপদজনক।
প্রয়োজনীয় উপকরণঃ

প্লাজমা গ্লোব/ল্যাম্প টি বানাতে হলে আমাদের প্রথমে একটি হাই ভোল্টেজ উৎস তৈরি করতে হবে। এই প্রজেক্ট এর প্রাণই হলো হাই ভোল্টেজ। তাই এখানে উপকরণ গুলোর সিংহভাগই হলো হাই ভোল্টেজ এর জন্য। এর জন্য যা ব্যবহার করতে হবে সেগুলো নিচে দেয়া হলো-

১. মোটরসাইকেল এর ইগনিশন কয়েল
২. এসি ফ্যান এর গতি নিয়ন্ত্রক রেগুলেটর
৩. 3.5uf ক্যাপাসিটর (450V AC)
৪. কিছু তার এবং একটি প্লাগ
৫. একটি টাংস্টেন বাল্ব এবং হোল্ডার
৬. লোহার বা এ্যালুমিনিয়ামের নেট বা এ্যালুমিনিয়াম ফয়েল।
৭. একটি গ্লু গান
৮. একটি বক্স যেটাতে স্থাপন করবেন

http://www.amaderelectronics.com/5992

Post has attachment
YouTube End screen Template by Amader Electronics

Post has attachment
Thank you for viewing Amader Electronics LIVE streaming. Stay tuned and SUBSCRIBE NOW to our channel to stay UPTDATED.

Post has attachment

Post has attachment
প্রশ্নোত্তরে লজিক গেইট, র‍্যাম ও ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্স
.
আসসালামু আলাইকুম । আশা করি সবাই ভাল আছেন । আমার ট্রান্সফর্মার প্রশ্ন ও উত্তর লেখাটির জন্য আপনারা আমাকে যে পরিমাণ ভালবাসা দিয়েছেন তাতে আমি সত্যিই অভিভূত। আজ প্রশ্নোত্তরে ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্স এর একটি মজার ও চমৎকার বিষয়- লজিক গেইট (Logic gate) নিয়ে আপনাদের সামনে এসেছি। আশাকরি পড়ে মজা পাবেন এবং অজানা কিছু হয়ত জানতে পারবেন।

পরিচ্ছেদসমূহ [আড়াল করুন]
1 ভূমিকাঃ
2 ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্স কাকে বলে
3 লজিক গেইট
4 প্রশ্নঃ লজিক গেইট কি
5 লজিক সার্কিট এর কম্পোনেন্ট সমূহঃ
6 লজিক আইসি সমুহ এবং তাদের কার্যক্রমঃ
6.1 7404 ( NOT Gate – নট গেইট ):
6.2 7408 (AND Gate – এন্ড গেইট):
6.3 7432 (OR Gate – অর গেট):
6.4 7400 (NAND Gate – ন্যান্ড গেইট):
6.5 7402 (NOR Gate – নর গেইট):
7 লজিক গেইট ব্যবহারের সতর্কতা
8 লজিক গেইট আইসির পাওয়ার সাপ্লাই
9 মসফেট দ্বারা তৈরি লজিক গেইটের কিছু উদাহরণ
10 র‍্যাম(RAM) কি, এর প্রকারভেদ, উদাহরণ ও আলোচনা
10.1 র‍্যাম(RAM)
11 মেমোরি কি
12 কম্পিউটারের স্মৃতি/মেমোরি (Memory) ‘র প্রকারভেদ
13 র‍্যাম বা মেমোরি সংক্রান্ত মজার বিষয়ঃ
14 বিভিন্ন র‍্যাম এর স্পেসিফিকেশনঃ
15 প্রশ্নঃ আমরা সাধারণত কম্পিউটারে রিফ্রেশ করি কেন?
16 সমাপ্তিঃ
ভূমিকাঃ

আজকে আসলে যে বিষয়টি নিয়ে এসেছি তা হল ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্স এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ এবং মজার কিছু বিষয় নিয়ে। তা হল লজিক গেইট । AND, OR, NOT, XOR, NAND, NOR, XNOR এর নাম আমরা সবাই প্রায় কম বেশি শুনেছি। এগুলো কম্পিউটারে আসলে কিভাবে কাজ করে তা হয়ত আমাদের মধ্যে খুব কম লোকেরই জানা আছে। কিন্তু এগুলো জানা আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে যারা মাইক্রোকন্ট্রোলার ও ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্স নিয়ে চর্চা করেন। তো চলুন শুরু করে দিই আমাদের ডিজিটাল যাত্রা।
http://www.amaderelectronics.com/5735

Wait while more posts are being loaded